আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও সুবর্ণরেখার পাশের গ্রাম। ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    সুবর্ণরেখার পাশের গ্রাম।

    সুবর্ণরেখার পাশের গ্রাম।
     - সুনিকেত চৌধুরী। 

    সুবর্ণরেখার পাশের গ্রামে বলেছিলে বাড়ী তোমার
    চোখে ছিল যে গভীরতা সাগরের আর ঠোঁটের কোণে হাসির ঝিলিক
    ক্ষনিকের সেই দেখা এখনো সজীব মাত্র তোলা সেলফির মতো
    ধূসরতা শুধু দ্রাঘিমা জুড়ে আর তাই ম্রিয়মান সুবর্ণরেখা !
    যদি বল আশা কি ছেড়ে দেব তবে, চলে যাবো তল্লাট ছেড়ে,
    হৃদয়ের স্পন্দনে যে সুর বেজেছে সকাল-সন্ধ্যা-রাতে 
    আকাশের সাথে বাতাসের সাথে যত কথা বলা
    নিমেষে মিটিয়ে দেব সব লেন-দেন ডিলিট বাটন চেপে!

     http://www.alokrekha.com

    2 comments:

    1. কামরুজ্জামান হীরাMarch 12, 2018 at 6:51 PM

      সুনিকেত চৌধুরীর সুবর্ণরেখা পাশের গ্রাম। দারুন অনবদ্য কবিতা বরাবরের মতই! অপূর্ব ভাব ! অনন্য প্রেমের প্রতিপাদ্য উপমা! আধুনিক শব্দ ব্যবহারে অনেক সুন্দর কবিতা! শুভেচ্ছা রইল!

      ReplyDelete
    2. ঋতু মীরMarch 15, 2018 at 6:07 PM

      সুনিকেত চৌধুরীর কবিতা আমাকে কখনো ভাললাগায় আকণ্ঠ ডুবিয়ে রাখে, মনে অপার আনন্দ মৃদঙ্গ বাজায় তালে তালে, কখনো অসীম ভাবনায় তলিয়ে যাই, আবার কখনও কষ্টবোধের নিঃসীম নীল শূন্যতার গহীনে মন হারিয়ে যায়। ভালোবাসা, প্রেম, আনন্দ, বিরহ, বিদ্রোহ , অভিমান, রাগ, কষ্ট, বিসর্জন আবার ফিরে আসা- এই সব কিছুতে কবির বোধ, অনুভূতি গভীর থেকে গভীরতর। মূর্ত থেকে বিমূর্তের ধারণায় পৌঁছে দিতে বুঝি কবিই পারেন। আমি বিমুগ্ধ পাঠক! চোখের সামনে তাঁর অবয়বের অস্তিত্ব নেই, নিরাকার এক মানুষ বা দেহ মাত্র। তারপরও উপলব্ধি জুড়ে এক সরব সত্ত্বার উপস্থিতি টের পাই- তিনি আছেন শব্দ, কথা, ছন্দ, ভাব আর অভিব্যাক্তি প্রকাশের সেই যাদুকরী ক্ষমতাটা নিয়ে! অদৃশ্য সেই অস্তিত্বের সাথে চলে আমার প্রশ্ন-উত্তর অথবা মনে মনে একান্ত কথোপকথন। সুখ-দুঃখের টলমলে জীবন নিয়ে বেঁচে থাকি, ভাল থাকি-এভাবেই! ধন্যবাদ আলোকরেখা !!

      ReplyDelete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ