alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    ইরফান খান ------ ভারতীয় চলচ্চিত্র জগতে তিনি তার অতুলনীয় ও অকল্পনীয় সহজাত অভিনয় ক্ষমতার জন্য পরিচিত।

    ইরফান খান (৭ জানুয়ারি ১৯৬৭ - ২৯ এপ্রিল ২০২০) ছিলেন একজন ভারতীয় চলচ্চিত্র অভিনেতা। ভারতীয় চলচ্চিত্র জগতে তিনি তার অতুলনীয় ও অকল্পনীয় সহজাত অভিনয় ক্ষমতার জন্য পরিচিত। ৩০ বছরের তাঁর দ্যুতিমান যাত্রায়, ইরফান খান প্রায় ৫০টির কাছাকাছি দেশী ও বহু বিদেশী চলচ্চিত্রে তাঁর অভিনয়ের মাধ্যমে বারবার দর্শকদের বিমুগ্ধ করেছেন। বলিউড, ব্রিটিশ ভারতীয়, হলিউড এবং একটি তেলুগু চলচ্চিত্রে তিনি কাজ করছেন।৩৫ বছরের কর্মজীবনে তিনি ৫০টির অধিক দেশীয় চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন, এবং শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ও চারটি ফিল্মফেয়ার পুরস্কার-সহ অসংখ্য পুরস্কার অর্জন করেছেন। চলচ্চিত্র সমালোচক, সমসাময়িক অভিনয়শিল্পী ও অন্যান্য বিশেষজ্ঞরা তাকে ভারতীয় চলচ্চিত্রের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ও অনন্য একজন অভিনয়শিল্পী বলে গণ্য করে থাকেন। ২০১১ সালে ভারত সরকার তাকে ভারতের চতুর্থ সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা পদ্মশ্রীতে ভূষিত করে।

    ২৫ লক্ষ ভালোলাগা স্পন্দন !

    ২৫ লক্ষ ভালোলাগা স্পন্দন !

    দম বন্ধ হয়ে আসা এই প্রকোষ্ঠের সব 'টা জানালা আজ খুলে দেয়া যাক ! আর উঁকি দিয়ে রাতের আকাশের যত তারা তার সবগুলো গোনা যাক - এরসাথে যোগ হোক আমাদের উপলব্ধি যে এরপর থেকে আমরা এমনি করে গুনবো আমাদের জীবনের আশীর্বাদগুলো ! আমাদের মাথায় বর্ষে দেয়া আমাদের মায়েদের আঁচল ভরা যত আশীর্বাদ , বিশুদ্ধ বাতাসের আশীর্বাদ, অবারিত বিশুদ্ধ পানির আশীর্বাদ,  আদিগন্ত আকাশভরা নীলের আশীর্বাদ।  


    সবশেষে দিগন্তের ওই আলোকরেখার ধার ঘেঁষে পঁচিশ লক্ষ ভালোলাগা স্পন্দনের উপহার নিয়ে দাঁড়াবো হাতে হাত ধরে ! ঘোষণা দেবো : সত্যম শিবম সুন্দরম! আমরা সৃষ্টির সৃষ্টির অংশ ! আমরা স্পন্দনে স্পন্দনে মিলেমিশে একাকার


    সানজিদা রুমি কর্তৃক গ্রথিত http://www.alokrekha.com

    আত্মশুদ্ধি ------------- মুনা চৌধুরী

    আত্মশুদ্ধি

    মুনা চৌধুরী

    কে বলে আমারেকেকে বলে?
    শুদ্ধ তুই শুদ্ধ আরো শুদ্ধ 
    পাথর সরিয়ে ঝর্ণার প্রথম জলেপুত পূণ্য হ।

    গ্লানিগুলো ধুয়ে ফেলবেদনার শুশ্রুষা কর
    অচল পেতে সাদা ফুল নে
    গন্ধরাজবেলীলিলি আর ক্যামেলিয়া
    মঙ্গলালোকে বিশুদ্ধ হ।

    যে শিশুদের মা নেই তাদের মা 
    যে মানুষেরা পথহারা তাদের বন্ধু 
    যে বৃদ্ধরা মমতার জন্য দাঁড়িয়ে ঠায় তাদের জড়িয়ে রাখ গভীর মায়ায়।

    এই বোশেখে ----- - সুনিকেত চৌধুরী।

     এই বোশেখে
    - সুনিকেত চৌধুরী। এই বোশেখে পণ করেছি ভালোবেসে নিঃস্ব হয়ে যাবো ! এই বোশেখে পণ করেছি তোমার সাথে হেঁটে হেঁটে অনেক দূরে যাবো। এই বোশেখে পণ করেছি ওই আকাশের নিলাদ্রীকে আপন করে নেবো।

    রোকসানা লেইসের ছয়টি অনু কবিতা

     রোকসানা লেইস
    এক ষষ্ঠ ইন্দ্রেয় বড় বেশী কথা বলে আজকাল আমি স্বযতনে দূরে সরিয়ে রাখি আতংক অনিন্দ্য স্বপ্নের পথে হাঁটি. হৃদয়ের ওষ্ঠে অধর ছোঁয়ায়। মনের চত্বরে মেলে মায়াময় পাখা, থাক না যতই বাঁধা ও বিপত্তি যুদ্ধ বিগ্রহ। নিহারিকা আলো পেরিয়ে যাবো ঠিক ভালোবাসার হাত ধরে অবশেষে। ফাগুয়ার দোল রঙ ছড়িয়ে যাবো হৃদয়ের আলপনায়, রঙিন বন্ধন আনন্দ ।

    HEART এর ব্যবচ্ছেদ ! - আশরাফ আলী।



    HEART এর ব্যবচ্ছেদ !
    - আশরাফ আলী। 

    ইংরেজী HEART শব্দটির তো অনেকগুলো অর্থ !

    সর্ব প্রথমে বাংলা পরিপূরক সে শব্দটি আমাদের মনে আসে সেটা হলো "হৃদয়"  এই হৃদয় নিয়েই তাহলে কথা বলি সবার প্রথমে।  আমরা বাংলায় যখনহৃদয়” শব্দটি ব্যবহার করি এবং এই হৃদয়কে ঘিরে যে সমস্ত অভিব্যক্তি প্রকাশ করি তাতে এটা অত্যন্ত পরিষ্কার যে এই হৃদয় নামক বস্তুটির কোনো আকার এবং অবয়ব নেই ! অর্থাৎ এর কোনো বস্তুগত অবস্থিতি নেই।  আমরা এটা একটা প্রতীকী হিসেবে ব্যবহার করি।  "হৃদয় আমার নাচেরে আজিকে......"  এই বলে আমরা আমাদের মানসিক আনন্দময়তার, উৎফুল্লতার অবস্থা বর্ণনা করি ! এখানে "হৃদয়" নিরাকার একটা কিছু।

    আগামীকাল ! ----- সুনিকেত চৌধুরী

    আগামীকাল !
    - সুনিকেত চৌধুরী


    স্বপ্ন আর সম্ভাবনার
    সমস্ত দুয়ার
    বন্ধ হয়ে যায় যদি কাল সকাল নাগাদ
    বিরান হয়ে যায় যদি সকল প্রাসাদ
    সকল অট্টালিকা আর সকল দপ্তর
    সেইসাথে জনশূন্য এই নাট্যশালা, এই নগর।
    নগরপতি, সেনাপতি আর করণিক
    নগরের নামকরা সকল বণিক
    উদ্যান রক্ষী, দেহরক্ষী নগরপিতার
    সুযোগ রহিত আলাপচারিতার। 
    দূরে দূরে থেকে কাছে থাকার চেষ্টা
    আকাশ পানে চেয়ে থাকা চাতকের তেষ্টা
    না যদি মেটে কোনোমতেই অতঃপর আগামীকাল
    মানবতা কি মরে যাবে, দেখবোনা আর কোনো
    নতুন সকাল?

     http://www.alokrekha.com

    অবশেষে জেনেছি মানুষ একা ! ঋতু মীর


      অবশেষে জেনেছি মানুষ একা !
    ঋতু মীর


     ‘Isolation is a way to know ourselves’

    আমার স্বভাবে দুই বৈপরীত্য বেশ প্রকট একদিকে আমি আপাদমস্তক সামাজিক মানুষের ভিড়ে আমার আনন্দ, উচ্ছ্বাসের শেষ নেই। কোন কিছুর ‘সাতে পাঁচে’ নেই এমনটা আমার সহজে মিশে যাওয়া স্বভাবের সাথে একেবারেই খাপ খায়না।  বিপরীতে আমি বাড়াবাড়ি ধরনের ঘরকুনো, অন্তর্মুখী এবং নিভৃতচারীকাজের স্বার্থে বাইরে যাওয়া ছাড়া বাকী সময় ঘরে প্রায় বিছিন্ন’ থাকাতেই যেন আমার যত সুখ, যত স্বস্তি নিজের চারদিকে এক অদৃশ্য বলয় তৈরি করে আমি যেন আত্মরক্ষার নিপুণ কৌশলে ‘নিজেকে নিয়েই’ ভাল থাকার এক অবিমিশ্র সুখে বেঁচে থাকি। স্কুলে মার্চ ব্রেক সহ করোনাভাইরাসের সতর্কতা জনিত দুই সপ্তাহের উপরি ছুটির ঘোষণায় মন মেজাজ হাল্কা, ফুরফুরে। ছুটির প্রথম সকালেই আরামের চেয়ারে স্ট্রেস ফ্রী এক আয়েশি ভাব। সন্ধানী চোখ জানালার বাইরে অবাক বিস্ময়ে ছুটোছুটি করে। গাছে নতুন পাতায় নতুন প্রানের ছন্দ। মুঠো মুঠো সোনালী রোদে প্রকৃতি বসন্তকে ধারণ করছে ধীরে হাতের কাছে হরিশংকর জলদাস-কয়েকদিন ধরে তাঁকেই পড়ছি ‘দহনকাল’ ‘কৈবর্ত কথা’, ‘রামগোলাম’ এর জেলে, মেথর জীবনের চালচিত্র, রুপ, রস, গন্ধ মাখা, অবিস্মরনীয় সব উপন্যাস! প্রায় উড়ে উড়েই চলে যায় কয়েকটা দিন আহা! কি ভীষণ নির্ভার আর আরামদায়ক বিচ্ছিন্ন এই সময় ভাবি, ‘বিছিন্নতা’ বলে হয়তো কিছু নেই  জগতের দৃশ্যমান সবকিছুর সাথেই আমরা এক অদৃশ্য শৃঙ্খলে বাঁধা । সব কিছুর সাথেই ভীষণভাবে যুক্ত এবং অবিছিন্ন

    নৌকাডুবি



    সানজিদা রুমি কর্তৃক গ্রথিত http://www.alokrekha.com

    অনাদি অনন্ত এই আমি ! -------------- সুনিকেত চৌধুরী

    অনাদি অনন্ত এই আমি !
    - সুনিকেত চৌধুরী 

    উচ্চারিত তাবৎ শব্দের ভেতরে সমাহিত নিস্তব্ধতার শপথ
    শপথ তোমার ওই কাজল কালো চোখের গগনবিদারী কান্নার 
    শপথ বুকের ভেতরে বাজা পুজোর ঘন্টাধ্বনির 
    নিরাভরণ পোশাক তীর্থযাত্রীর 
    বুঝে গেছি আমি এইবারে 
    আমার অনাদি অনন্ত স্বপ্নহীন !
    সামন-পেছন, ডান-বাম, পুব-পশ্চিম , ওপর-নীচ 
    গন্তব্য তো নেই কোনো 
    অবয়বহীন এই আমিটার ! 


     http://www.alokrekha.com

    চব্বিশ লক্ষ মিলে মিশে একাকার

    দিগন্তের ওই আলোকরেখা !


    প্রমোদ ভ্রমণে গিয়ে প্রশান্ত সাগরের ওপর প্রমোদ তরী চড়ে, সাগরের তীরে বসে পরস্পরের হাতে হাত রেখে সূর্য্যোদয় সূর্য্যাস্ত দেখে ঘরে ফিরে মনের কোণে কোনো ভয় কিংবা আশংকার আঁচড় তো লাগেনা। কল্পনায় তো আসেনা প্রশান্ত এই সাগর আমাদের এই জনপদ, আমাদের আবাস আমাদের এই দিন-রাত্রি নিমেষে ডুবিয়ে দিতে পারে - প্লাবিত করে দিতে পারে আমাদের আহমে গড়া অহং প্রাসাদ আর সৌকর্য্যের অট্টালিকা !