আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও "আমি কত সুন্দর!" ............ - সুনিকেত চৌধুরী। ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    "আমি কত সুন্দর!" ............ - সুনিকেত চৌধুরী।

    "আমি কত সুন্দর!"

    - সুনিকেত চৌধুরী।



    সরঞ্জামহীন ভগবান যখন শুধুমাত্র ইচ্ছামন্ত্র দিয়ে জীবন সঞ্চারিত করেন আমাদের মাঝে আর আমরা যখন এক থেকে একের অধিক হয়ে যাই শুরু হয় আমাদের পথচলা। আদিগন্ত বিসতৃত এই পৃথিবীর অবারিত আলো, জল আর অক্সিজেন আমাদের লালন করে।  একটু একটু করে বড় হয় আমাদের চেতনার আকাশ, সম্মৃদ্ধ হয় নদীকূলের গড়ে ওঠা নগরী। ওই নগরীর শেষ সীমানায় যে ঝাউ কিংবা শালবন সেখানেই তো দেখা হয়েছিলো তোমার আমার। 

    সেই থেকে দিনের রৌদ্রোজ্জ্বল প্রহর আর তারা গোনা নিশীথের অখণ্ড নীরবতায় স্বর্গের পরীরা সাথে থেকে দেখিয়েছে পথ।  প্রয়োজনে উত্তোলিত চোখ তুলে প্রশ্নবাণ ছোড়ার আগেই আমাদের স্ফটিকস্বচ্ছ নিমগ্নতায় বাণী এসে দিয়ে গেছে ভালোবাসা নদী।চৌতন্যরাশির আগমন-নির্গমনের দরবারী মূর্ছনায় সুললিত কোরাস আমরা গেয়েছি অহর্নিশ। 

     এরই মাঝে কোথা থেকে এলো যেন জাদুকর এক, হাতে তার নীল রং পতাকা ! বলা নেই, কওয়া নেই ঘাঁটি গেড়ে বসে গেল নগরীর প্রতি গৃহে।  কি থেকে কি যে হয়ে গেল সেই থেকে, শুরু হলো বেচা-কেনা সত্যি যা নয় তেমন কিছুর ! পড়ে গেল বাজার দর সনাতন সবুজ সত্যের।  আকাশ ছোঁয়া মূল্যে বাজারে এলো হলুদ মোড়কে মোড়া নিজের ছায়ার চেয়ে বড় সবচেয়ে খাটো শীর্ণকায় রুগ্ন  আকুতি : এই দেখ, এই আমার দিকে চেয়ে দেখ, "আমি কত সুন্দর !"

     http://www.alokrekha.com

    5 comments:

    1. নিলুফার ইয়াসমিনSeptember 23, 2018 at 5:17 PM

      চমৎকার সৃষ্ট কবিতা চমৎকার রচনাশৈলী ও স্বতন্ত্র ভাব ও ভাষা প্রয়োগে চমৎকার একটা কবিতা ।কাব্যিক ছন্দোবদ্ধ দারুন কবিতা। অনেক শুভেচ্ছা কবি। আপনি ভালো থাকুন আরো লিখুন !”

      ReplyDelete
    2. মেহের আফরোজSeptember 23, 2018 at 5:28 PM

      "আমি কত সুন্দর!"
      - সুনিকেত চৌধুরী।
      অপূর্ব বিষয় বস্তু ভাষাভাব ও শব্দচয়ন ও রচনা
      শৈলী মিলিয়ে অনবদ্য ও অনিন্দ্য এক কবিতা। ”
      কবিকে অনেক অভিনন্দন

      ReplyDelete
    3. ইকবাল শাফিSeptember 23, 2018 at 5:54 PM

      সুনিকেত চৌধুরী জীবনবোধের লেখক ও কবি । অনন্য তার লেখা ।"আমি কত সুন্দর!" লেখাটা হৃদয়ে অনুরণন ঘটায়। তার লেখার প্রতিটি শব্দ সর্বদাই ভিন্নধর্মী।" সরঞ্জামহীন ভগবান " এই শব্দে ভগবানের রূপ প্রকাশিত হয়। এভাবেই সুনিকেত চৌধুরী আমাদের হৃদয়ে আসীন হয়েছেন। অনেক ভালোবাসা ও ভাল লাগা লেখার জন্য শুভেচ্ছা সুনিকেত চৌধুরীকে।

      ReplyDelete
    4. মৃন্ময়ীSeptember 23, 2018 at 6:18 PM

      সুনিকেত চৌধুরী "আমি কত সুন্দর!" লেখাটা জীবন বিস্তৃতির এক কাহন।" সরঞ্জামহীন ভগবান যখন শুধুমাত্র ইচ্ছামন্ত্র দিয়ে জীবন সঞ্চারিত করেন আমাদের মাঝে আর আমরা যখন এক থেকে একের অধিক হয়ে যাই শুরু হয় আমাদের পথচলা। আদিগন্ত বিসতৃত এই পৃথিবীর অবারিত আলো, জল আর অক্সিজেন আমাদের লালন করে। একটু একটু করে বড় হয় আমাদের চেতনার আকাশ, সম্মৃদ্ধ হয় নদীকূলের গড়ে ওঠা নগরী।" আর এই নগরীর শেষ সীমানায় যে ঝাউ কিংবা শালবন সেখানেই তো দেখা হয় আমাদের । তার পর জীবনের চলমান গতি। খুব ভালো হয়েছে। প্রাণ কাড়া।

      ReplyDelete
    5. কবি ও লেখক সুনিকেতের "তুমি কত সুন্দর " কেবল জীবনবোধের নয় আত্মাধিক লেখা। এখানে ঈশ্বরবাদের প্রতিফলন দেখতে পাই। ঈশ্বর নিজেই নিজেতে অনন্য। তিনি কোনকিছুর মুখাপেক্ষী নয়। তিঁনি ইচ্ছেধারী।তাঁর কোন সরঞ্জাম লাগে না কেবল ইচ্ছে করেন হও আর তা হয়ে যায় । তাতেই জীবন সঞ্চারিত হয় আমাদের মাঝে আর তখন আমরা এক থেকে একের অধিক হয়ে যাই শুরু হয় আমাদের পথচলা। আদিগন্ত বিসতৃত অবারিত আলো এই পৃথিবীর, জল আর অক্সিজেন আমাদের লালন করে। "একটু একটু করে বড় হয় আমাদের চেতনার আকাশ, সম্মৃদ্ধ হয় নদীকূলের গড়ে ওঠা নগরী।ওই নগরীর শেষ সীমানায় যে ঝাউ কিংবা শালবন সেখানেই তো দেখা হয়েছিলো তোমার আমার।চৌতন্যরাশির আগমন-নির্গমনের দরবারী মূর্ছনায় সুললিত কোরাস আমরা গেয়েছি অহর্নিশ। " এখানে জীবনের চলমান গতি বর্ণিত করেছেন লেখক। আর এই গতির ছন্দপতন হয়। পড়ে যায় সত্যের বাজার দর । "আকাশ ছোঁয়া মূল্যে বাজারে এলো হলুদ মোড়কে মোড়া নিজের ছায়ার চেয়ে বড় সবচেয়ে খাটো শীর্ণকায় রুগ্ন আকুতি : এই দেখ, এই আমার দিকে চেয়ে দেখ", "আমি কত সুন্দর !"

      ReplyDelete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ