আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও কবিতা নিয়ে আমার নুতন পর্ব বিশ্বকবিতা অনুবাদ -পাসপোর্ট মাহমুদ দারভিশ (প্যালেস্টাইন) অনুবাদ: মেহরাব রহমান- ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    কবিতা নিয়ে আমার নুতন পর্ব বিশ্বকবিতা অনুবাদ -পাসপোর্ট মাহমুদ দারভিশ (প্যালেস্টাইন) অনুবাদ: মেহরাব রহমান-

     কবিতা নিয়ে আমার নুতন পর্ব
    বিশ্বকবিতা অনুবাদ
    পাসপোর্ট মাহমুদ দারভিশ (প্যালেস্টাইন) অনুবাদ: মেহরাব রহমান ছায়ার পরে ছায়া......ছায়ার মিছিল ছায়া উপছায়ায় ওরা আমাকে চিনতে পারেনি আঁধারীর ম্লান অন্ধকার পাসপোর্ট থেকে শুষে নিয়েছে আমার সমস্ত রং এবং তাদের কাছে আমার ক্ষতচিহ্ন ছিল কেবলমাত্র প্রদর্শনীর মতো ওরা ভেবেছে আমি এক পর্যটক সখের বশে স্থিরচিত্র সংগ্রহ করি
    ওরা আমাকে চিনতে পারেনি ওহে……. ফেলে যেওনা আমাকে দেখছনা আমার করতল সূর্যালোকশূণ্য যেহেতু গাছেরা আমাকে চিনতে পেরেছে যেহেতু বৃষ্টির সব সংগীত আমাকে চিনেছে হায়! আমি চাঁদের মতো পান্ডুর হয়ে গেছি আমাকে তোমরা ফেলে রেখে চলে যেওনা ! সব পাখি যারা আমার প্রসারিত করতল অনুসরণ করতে করতে এই দূরবর্তী বিমান বন্দরের দ্বারপ্রান্ত পর্যন্ত এসেছে সবকটা গমক্ষেত, সবকটা কয়েদখানা, সবকটা শ্বেতবর্ণ সমাধিস্তম্ভ, সবকটা কাঁটাতার সীমান্ত, সবকটা হিল্লোলিত রুমাল-অভিবাদন, সবকটা চোখের দৃষ্টি ছিল আমার সঙ্গী কিন্তু ওরা সবাইকে এক এক করে ছুঁড়ে ফেলে দিলো আমার পাসপোর্ট থেকে আমার নাম এবং পরিচয় ছিনতাই করলো ? একটি মৃত্তিকায় যা আমি নিজ হাতে লালনপালন করেছি ? আজকে আমার কর্ম আকাশচুম্বী চিৎকার করে বলে উঠলো : আমার মতো এরকম উদাহরণ যেন আর একটিও জন্ম না নেয় হে ভদ্রলোকগণ , নবীগণ বৃক্ষকুলকে প্রশ্ন করোনা নাম এমনকি উপত্যকার কাছে জানতে চেয়োনা মায়ের নাম আমার কপাল ফুঁড়ে বেরিয়ে এসেছে চমকানো তরবারি জ্বলজ্বল করছে আলোর বন্যা এবং আমার হাত থেকে প্রবাহিত নদী-জলের ঝর্ণা মানুষের প্রতিটি হৃদয়ে রোপন করেছি আমারপরিচয় কাজেই কিচ্ছু যায় আসেনা আসো তোমরা কেড়ে নাও ছিনতাই করো আমার পাসপোর্ট
     http://www.alokrekha.com

    8 comments:

    1. শফিক রহমানNovember 25, 2019 at 8:37 PM

      মেহরাব রহমান " পাসপোর্ট " কবিতা রূঢ় জীবনের বাস্তবতা। আমি ভাষা জানি না তাই প্রকাশ করতে পারছি না।কিন্তু বারবার পড়েছি খুব ভালো লাগলো । আমি পড়তে ভালোবাসি আমি আরো অনেকের অনুবাদিত কবিতা পড়েছি। কিন্তু মেহরাব রহমানের এই কবিতা অনন্য। ভালো থাকবেন। অনেক শুভ কামনা।

      ReplyDelete
    2. মীরা রায়November 25, 2019 at 8:44 PM

      মেহরাব রহমান " পাসপোর্ট " অনবদ্য অনূদিত কবিতা।অনুবাদে কবিতার মূল বক্তব্য নষ্ট হয়ে যায়। কিব্তু মেহরাব রহমান যে শব্দ চয়ন করেছেন তাতে ক্বিতালে এক উন্নত মাত্রা দিয়েছে ,যেমন ছায়ার পরে ছায়া......ছায়ার মিছিল ছায়া উপছায়ায়। ছায়া শব্দটিকে নিয়ে তিনি খেলেছেন। বর্ণিত হয়েছে নানা বর্ণে। খুব ভালো লাগলো। শুভ কামনা কবি।

      ReplyDelete
    3. মলয় সাগরNovember 25, 2019 at 8:47 PM

      মেহরাব রহমান " পাসপোর্ট " অনবদ্য, নিখুঁত কবিতা আমার কাছে মনে হয়েছে। আমি মাহমুদ দারভিশ-এর মূল কবিতাটি পড়ি নাই। কবি মেহরাব রহমানের চোখ ও কলমের খোঁচায় অঁঙ্কিত কবিতা পড়েছি ,এক কোথায় অনন্য। ওরা আমাকে চিনতে পারেনি আঁধারীর ম্লান অন্ধকার পাসপোর্ট থেকে শুষে নিয়েছে আমার সমস্ত রং এবং তাদের কাছে আমার ক্ষতচিহ্ন ছিল
      কেবলমাত্র প্রদর্শনীর মতো ওরা ভেবেছে আমি এক পর্যটক সখের বশে স্থিরচিত্র সংগ্রহ করি "কবিতার মূল মন্ত্র। অনেক শুভ কামনা।

      ReplyDelete
    4. মিতা রহমানNovember 25, 2019 at 9:43 PM

      মেহরাব রহমান " পাসপোর্ট " নিখুঁত কবিতা।ওরা আমাকে চিনতে পারেনি
      ওহে……. ফেলে যেওনা আমাকে
      দেখছনা আমার করতল সূর্যালোকশূণ্য
      যেহেতু গাছেরা আমাকে চিনতে পেরেছে
      যেহেতু বৃষ্টির সব সংগীত আমাকে চিনেছে
      হায়! আমি চাঁদের মতো পান্ডুর হয়ে গেছি
      আমাকে তোমরা ফেলে রেখে চলে যেওনা ! দারুন লেখা। অসামান্য এক কথায়। শুভ কামনা কবি। ভালো থাকবেন।

      ReplyDelete
    5. শারমিন হোসেনNovember 25, 2019 at 9:45 PM

      মেহরাব রহমান " পাসপোর্ট " কবিতাটা আমার খুব ভালো লেগেছে। কিন্তু ভালো করে বুঝতে পারিনি। উচ্চ মার্গের বিমূর্ত মনে হয়েছে। কবির কাছে বিনীত নিবেদন উনি যদি মূল সারাংশ একটু বুঝিয়ে দিতেন। কিছু মনে করবেন না কবি। ভালো থাকবেন। শুভ কামনা

      ReplyDelete
    6. I have been in love with Mahmood Darvish all my life. To me Darwish was a "jat kobi' as we say in Bangla. Even his interviews time to time given to world media (as he worked with Yasir Arafat with political agnedas involving Palestine) has been lyrical. Thank you Mehrab Rahman for the wonderful translation of Darvish and your approach of translating world literature. Its about time more Lit-lovers like you should take time to bring out world literature for readers of both Bengals. God bless you Mehrab Rahman.

      ReplyDelete
    7. A note to Mr Rahman, over the years'Kali O Kolom', the magazine from Bangladesh translated Darwish several times. Please collect them as they could be wonderful addition to your collection of Darwish poems.

      ReplyDelete
      Replies
      1. Thank you very much for the information . I will. Indeed when I was in Bangladesh I was a serious readerof kalio kolom .

        Delete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ