আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও রাজা খাবেন বউখুদা”----------- বদরুদ্দোজা চৌধুরী ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    রাজা খাবেন বউখুদা”----------- বদরুদ্দোজা চৌধুরী

     

    যদি হাসতে ভালোবাসো     
    না হয় একটুখানি হাসো



     রাজা খাবেন
    বউখুদা

    বদরুদ্দোজা চৌধুরী




    এক ছিল এক রাজা। সবাই বলতো মটুক রাজা। রাজাটি লোক হিসাবে মোটামুটি ভালোই ছিলেনকিন্তু একটু ঝোকে চলতেন এই যা। বড় রানীর বাচ্চা হয়নি। অল্প বয়সী ছোট রানীর একটাই বাচ্চানাম তার চপল কুমার।
    দুই রানী এবং রাজপুত্র নিয়ে রাজার সংসার। রাজা রাজ্য চালান একপাল মন্ত্রী নিয়ে। রাজা প্রায়ই ভাবেন মন্ত্রীদের বুদ্ধিশুদ্ধি নিয়ে।
    চলে যাচ্ছে রাজত্ব। চলে যাচ্ছে রাজার সংসার।
    বড় রানীর বাচ্চা নেই। নির্ঝঞ্ঝাট মানুষ। ছোট রানী বয়সে অনেক ছোট। বড় রানী তাকে স্নেহ করেন। আদর করেন চপল কুমারকেযেন তাঁর নিজের ছেলে। তাঁর হিংসা নেই কোন।


    ছোট রানী ভরদুপুরে সোনার পালঙ্কে রূপোর মাদুর বিছিয়ে শুয়েছেন। ঘুম আসছে নাতাই শুয়ে শুয়ে নানান গল্প করছেন তার বাপের বাড়ির কাজের মেয়ে রূপসীর সঙ্গে।
     রুপসীতোর বাপের বাড়ি কী কী মজার খাবার খেতিস বলতোহঠাৎ রানী প্রশ্ন করেন।
    রূপসী দাসী পা টিপছে আর হাসছেকী আর খেতাম রানীমা। আমরা গরিব মানুষরাজবাড়ীর পোলাও কোর্মা পাব কোথায়?





    তা নইলে কি মজা খেতিসরানীমার ফের প্রশ্ন।
    রূপসী বললোএই আর কীকখনো গরম ভাতকখনো পান্তাভাতচ্যাপা শুটকিতরকারির খোসার ভর্তাকখনো গুড়ো মাছ এইসব। আমরা গরিব মানুষ না!
    চট্ করে রানীর মাথায় খেয়াল চেপে যায়।
    রূপসীতুই আমাকে তোদের খাওয়া রান্না করে খাওয়াবিরাজবাড়ীর পোলাও-কোর্মা ছাইপাশ খেতে খেতে আমার মুখ পঁচে গেছে। আর তো ভালো লাগে না। তোদের মরিচ বাটাকালিজিরা ভর্তাপান্তাভাতশুটকি ভর্তা - খাওয়াবি?
    শুনে রূপসীর গালে হাত।
    ওমা বলেন কি ছোটরানীমহারাজা শুনলে আমাকে দশ টুকরো করে ফেলবেন। রাজবাড়ীতে পান্তা-শুটকি-মরিচ বাটাতাই কি হয় কখনোআমায় মাফ করবেন রানীমা।
    দূর বোকারাজামশাইকে আমি হাত করবো। আমরা দুজনেই খাবো। ছোট রানীমা অভয় দিলেন।
    রানীমারান্না ঘরে ঢুকে এসব কথা বললে আপনার 'খানেক বাবুর্চি আমাকে কিল মারতে মারতে মেরেই ফেলবে গো। বললো রূপসী দাসী।
    শোন্ রূপসীপান্তা ছেড়ে দে। ওটা রাজবাড়ীতে চলবে না। কিছু একটা রানী ভাবতে থাকলেন গালে হাত দিয়ে। রূপসীও অনেকক্ষণ ভাবলো। চট্ করে তার মনে পড়লো তাদের গাঁয়ের জোতদারের ছেলের বউয়ের কথা। রূপসী ওই বাড়িতে আগে কিছুদিন কাজ করেছিল।
    জোতদারের ছেলের বউ ভোর সকালে এক দারুণ মজার জিনিস রান্না করে কাজের মেয়েদের নিয়ে একসাথে খেতো। দারুণ মজাদার। মুটকি শাশুড়িটা বউটাকে খেতে দিতো না বলে বউ নিজের শাশুড়ির চাল বেছে বেছে খুদটা খাঁটি সরষের তেলকাঁচামরিচপেঁয়াজলবণ দিয়ে দারুণ একটা খাবার রান্না করতো।

    তোমরা “বউখুদার জন্মকথা” বইটাতে  খাবারের গল্পটা পড়তে পারো।

    ভোর হবার আগেই  তেল খুদের পোলাও পাঁচ রকমের ভর্তা দিয়ে ওরা সবাই খেতো। কালিজিরার ভর্তাপটল খোসার ভর্তামূলা বেলে মাছের ভর্তামরিচ বাটাতেঁতুলের ভর্তা এসব দিয়ে গরম গরম খুদের পোলাওখেতে লাগত দারুণতুলনাহীনসবাইকে ঢক ঢক করে পানি খেতে হতো ঝালের তোড়ে। রূপসী দাসীর হঠাৎ মনে পড়তেই সে ছোট রানীকে কথাটা খুলে বলল।
    রানীমাযদি খেতে চান  জোতদার বাড়ির ছেলের বউকে ডেকে আনলে খাবারটা রান্না করে আপনাকে খাওয়াতে পারে সে। পরামর্শ দিলো রূপসী দাসী।
    ছোট রানীমা বললেন - সত্যি করে বল রূপসী খেতে কেমন মজাসত্যি করে বলবি কিন্তু?
    রূপসী বললো - সত্যিসত্যিসত্যি তিন সত্যি। মাথার কিরাআমার বাপের জন্মে অমন মজা খাইনি। রাগ করবেন না রানীমা। এর কাছে কোথায় লাগে রাজবাড়ীর পোলাও-কোর্মাকোপ্তা কালিয়াতবে ঝালটা একটু বেশি এই যা।
    ছোট রানী দারুণ মজা পেলেন রূপসীর কথায়। ভাবনা শুধু রাজাকে নিয়ে। রাজাকে আগে কথাটা বলতে হয়। রাজাকে প্রথমে রাজী করাতে হবে - যেমন করে হোক। তবেই না!


    রাতের বেলা রাজা খাওয়া-দাওয়া সেরে যখন শুয়ে পড়লেন তখন ছোটরানী কথাটা পাড়লেন।
    ছোট রানী বললেন - রাজামশাইঘুমালে নাকি?
    কেনঘুম জড়ানো রাজার গলার আওয়াজ।
    বলছিলাম কিরোজ রোজ  এক পোলাও কোপ্তা খেতে ভালো লাগে না।
    রাজা বললেন - তাহলে কী খাবেরুটি গোশত্রাজা ঘুম জড়ানো গলায় রানীর সাথে মশকরা করতে চাইলেন।
    ছিঃ মাউরা খানা কেন খেতে চাইবোদেশী খাবার নেই কোন?  রানীর জবাব।
    যেমনরাজা বললেন।
    যেমন পান্তাভর্তাশুঁটকি . . . রানী বলেই চলেছেন।
    রাজা ধাড়াক করে বিছানায় উঠে বসলেন। রানীর কি রাত জেগে মাথা গরম হয়ে গেলো নাকিরাজা উঠে বসে রানীর দিকে তাকিয়ে নিজের হাত রানীর মাথায় চাঁদির মাঝখানে রাখলেন।
    রানী বললেনওমা আমার চান্দিতে কি দেখছো?
    তোমার মাথা গরম হয়েছে কিনা তাই দেখছি। আশ্চর্যমাথা তো একদম ঠান্ডারাজা অবাক।
    রাজা বললেনতবে তুমি কি ঠান্ডা মাথায় শুটকি আর মরিচ ভর্তা খেতে চাইছোতাও আমার এই রাজ্যের এই রাজপ্রাসাদেলোকে জানলে ছিঃ ছিঃ করবে নাবলো কি ছোট রানী?
    রানী নাছোড়বান্দার মতো ডানে-বাঁয়ে মাথা দুলিয়ে বললেন - নাএকদম ছিঃ ছিঃ করবে না। কারণ জিনিসটা হবে খুব গোপনে।
    পান্তা ভাত নয় - আমরা খাব খুদসরষের তেলমরিচের পোলাও যার নাম “বউখুদা দারুণ খাবার!





    রানী রূপসী দাসীর কাছে শোনা বউখুদার সঙ্গে পাঁচ রকমের ভর্তা খাবার এমন রসিয়ে রসিয়ে গল্প করে শোনালো যে রাজার সত্যি সত্যি জিবে পানি এসে গেলো। রাজা ফুৎ ফুৎ করতে লাগলেন।
    রাজা বললেনসত্যি সত্যি খাওয়াবে এমন মজার খাবার রানীতাহলে কালকেই জোতদারের বউকে আনতে রাজবাড়ীর বড়কান্দাজ দিয়ে পালকি পাঠিয়ে দিই?
    রানী খুবই খুশি। রাজাকে তিনি ঠিক হাত করে ফেলেছেন। চমৎকার।


    এরপর একদিন জোতদারের বউ পালকী চড়ে বেহারাদের হুম হুমা শুনাতে শুনাতে রাজবাড়ীর অন্দরমহলে এসে পৌঁছালো। তাকে ছোট রানীর ঘরে নিয়ে এলো রূপসী দাসী। রূপসী রানীর কাছে আনার আগেই জোতদারের বউকে জানিয়ে দিলো রানী কেন তাকে ডেকেছিল।
    জোতদারের বউয়ের তো গালে হাত। রাজবাড়ীতে রাঁধতে হবে তার “বউখুদা”!! “বউখুদা” রান্না করতে যা দরকার রাজপ্রাসাদে তা সে কোথায় পাবেএই ধরো না ভাঙ্গা চালের খুদসরষের তেলকালিজিরাচ্যাপা শুটকির ভর্তাচাটগাঁয়ের লালমরিচমূলা ঝুরিবেলে মাছ - এগুলো কী রাজবাড়ীতে খায় নাকি?
    ছোট রানী তাকে সাহস দিলেন। শোনো জোতদারের ছেলের বউরূপসী দাসী তোমার সাথে তোমাদের গাঁয়ের বাড়ি গিয়ে ঐসব আনাজপাতিমালমশলা জোগাড় করবে। তারপর তরঙ্গ ভরে তালাচাবি দিয়ে তোমার সব মালামাল নিয়ে আসবে। কাকপক্ষীও জানবে না।
    জোতদারের বউ বললো - আসার পথে বাড়ি থেকে মাটির তোলা উনুনও নিয়ে আসা যাবে। রাজবাড়ীর রান্না ঘরে ঢুকে তো আর রান্না করা যাবে নাজানাজানি হয়ে গেলে কেলেংকারী হয়ে যাবে না?
    এসব যেন কেউ জানতে না পায় এমন ব্যবস্থা করলেন ছোট রানী।
    তুমি অন্দরে আমার পাশের ঘরে রান্না করবে।
    এইভাবে বউখুদা রান্নার ষড়যন্ত্র হলো।


    কয়েকদিন পরে সব মালপত্রসহ বউটি আবার এসে হাজির হলোএবার সঙ্গে ছিল রূপসী দাসী। রাজামশাই মাঝে মাঝে তাগাদা দিচ্ছিলেন।
    কই রানীতোমার “বউখুদা” কতদূরকবে হবেআমার জিব তো পানিতে জব জবা হয়ে গেলো। ফুৎ ফুৎ ....
    একদিন জোতদারবউ সত্যি সত্যি তোলা চুলোতে সব রান্না করে ফেললো সকাল সকাল। ততক্ষণে রাজা চলে গেছেন রাজসভায়মন্ত্রীবর্গ নিয়ে করছেন কাম কাজ।
    এদিকে রান্নাবান্না সারা। রাজা আছেন রাজসভায়। রাজাকে খবর দিতে হয় গরম গরম খুদের পোলাও খাবার জন্যে। কেমন করে খবর দেওয়া যায়?
    খুদের পোলাও খেতে আসুন একথা বললে রাজার কি আর মান সম্মান থাকেরাজা খাবে খুদের পোলাও - একথা কি রাজসভায় জোরেশোরে বলা যায়?
                    রানী পড়লেন মুশকিলে
                    রানী ভাবছেন আর ভাবছেন।


    রাজাদের অনেক রাজভৃত্য থাকে মটুক রাজারও ছিল তাই। এর মধ্যে সবচেয়ে চালাক রাজভৃত্য ছিল এক নম্বর রাজভৃত্য। সে আবার ছড়াও কাটতে জানতো। নতুন ছড়া বানাতেও পারত।
    রানী রাজভৃত্যকে ডেকে পাঠালেনশোনো রাজভৃত্যতোমাকে আজ বুদ্ধির পরীক্ষা দিতে হবে।
    ছড়ায় ছড়ায় রাজার সঙ্গে কথা বলতে হবে। তুমি বুঝবে আর রাজামশাইকে বোঝাবে এমন করে বলতে হবে।
    মনে থাকবে তো সমস্ত ব্যাপারটারানী বুঝিয়ে বললেন রাজভৃত্যকে। রাজাকে তাড়াতাড়ি ডাকতে হবে।
    অথচ কেউ যেন বুঝতে না পারে রাজামশাই খুদ খেতে আসছেন। রাজা রানীর ইজ্জতের প্রশ্নপারবে?
    চালাক রাজভৃত্য হেসে বলে খুব পারবো,
    একবার হুকুম দেন
                    সন্দেহ করেন ক্যান?
                    যাব আর আসবো
                    ফটাফট কাম সারবো।
    ওর ছড়া শুনে রানী তো হেসে কুটি কুটি।

    একটু পরে রাজভৃত্য গুটি গুটি পায়ে রাজসভায় হাজির। রাজসভা তখন জমজমাট। মন্ত্রীওমরাহ্দেশী-বিদেশী লোকজনে ভরপুর।




    রাজামশাইকে অন্দরমহলে নিয়ে যেতে হবে রাজভৃত্যকে। চাট্টিখানি কথা নয় এটা। সুতরাং ফন্দি মতো লম্বা একটা সালাম দিয়ে রাজভৃত্য রাজার সঙ্গে কথা শুরু করে দিলো ছড়ায় ছড়ায়। রাজাও কম যান না। তিনিও জবাব দিলেন ছন্দে ছন্দে।
    রাজভৃত্য:
                    মহারাজভয়ে কবো না নির্ভয়ে?
                    করজোড়ে করি নিবেদন -
    রাজা:
                    নির্ভয়ে নির্ভয়ে
                    রাজভৃত্যকহ দ্রত
                    বড় ব্যস্ত
                    ছাড়ো হে বচন।
    রাজভৃত্য:
                    সাদাসিধা কবো মহারাজ,
                    না ধাঁধাঁয় ধাঁধাঁয়?
    রাজা:
    (ঈষৎ হেসে)
                    ধাঁধাঁয় ধাঁধাঁয়মন্দ কি তায়?
                    শুধু বুদ্ধিমান যেন বুঝতে পায় -
                    না হয়মন্ত্রীদের আজ পরীক্ষায় হয়ে যাক।
                    যদি বোকা হয় তবে ধরাই পড়ে যাক।
    মন্ত্রীগণ:
    (বাধিত হবার ভাব করে)
                    হেঃ হেঃ হেঃ মহারাজ
                    কথা নতুন নহে আজ
                    আমরা যে মহাবোকাবোকা শিরোমণি
                    একথা হুজুর আপনিআমরাসবাই জানি
                    হেঃ হেঃ হেঃ হেঃ
    রাজা:
    (ধমক দিয়ে)
                    থামাও তোমাদের হেঃ হেঃ হেঃ হেঃ
                    কই হে রাজভৃত্যজলদি বলো।
    রাজভৃত্য:
    (বিনয়ে হাত কচলে কচলে)
                    মহারাজসুসংবাদ করি নিবেদন -
                    রানীমা বললেন,
                    যেন শোনেন দিয়া মন।
    মহারাজা:
                    রানীমা বললেন?
                    তবে কান পেতে দিই। বলো বলো।
    মন্ত্রীবর্গ:
                    বলো না হেবলো বলো। জলদি বলো।
    রাজভৃত্য:
                    হুজুর নিবেদন বেশি কিছু নাই
                    সংক্ষেপেতাও ধাঁধাঁয় কবো তাই।।
                    হুজুর  যে চালমনির পুত্র খুদমণি রায়
    আপনার সহিত সাক্ষাৎ করিতে চায়।
    রাজা:
                    বটে বটেকে বটে?
                    বলতো আবার
                    নামটা যেন শোনা শোনা আমার!
    রাজভৃত্য:
                    হবে না কেন হুজুর?
                    অবশ্যই শোনা শোনা মহারাজ,
                    রানীমা বললেন -
                    আগে নাকি কথা ছিল আসবেন আজ।
    রাজা তখনো ব্যাপারটা আন্দাজ করতে পারেননি। ভাবছেন তিনি। মন্ত্রীগুলো কিছুই না বুঝে কেবলই ডানে-বাঁয়ে মাথা দোলাচ্ছে এবং মাথায় টোকা মারছে।
    মন্ত্রীবর্গ:
                    হেঃ হেঃ হেঃ হেঃ
                    তাই তোতাই তো বটে বটে বটে
                    ধাঁধাঁটা সত্যি সত্যি বেজায় খট্খটে।
    রাজা:
    (ধমকের সুরে)
                    চুপ চুপ চুপ চুপ!
                    বুদ্ধির ঢেঁকি সব একদম চুপ।
    রাজভৃত্য:
                    হুজুর তবে আবার করি নিবেদন,
    এখনো  যদি ধাঁধাঁটা নাই বুঝে থাকেন।
                    মহারাজচালমনির পুত্র খুদমনি রায়
                    বাপের চেয়ে বেশ বেঁটে খাটো গায়ে পায়।
                    তিনি তো আপনার সাথেই সাক্ষাৎ করতে চায়।
    রাজা:
                    আরো কিঞ্চিত বিশদ করে বলো
                    না হলে অন্দরেই চলো।
    রাজভৃত্য:
                    হুজুর বলি তবে খুদমনি বাবুর দেরী নাহি সয়
                    দেরীতে গতর তার শীতল হয়ে যায়।
                    আসলে গরম কুটুম্ব যেমন অতিথি প্রিয় বটে
                    গরম মেজাজ মর্জি তাই তারে খাটে।
                    ঠিক যেন ঝাললংকাতায় তেলে ভাজা
                    দেখা হলেই বুঝবেন মজা।
    রাজা:
                    গৃহভৃত্যখুদমনি মশাই কোন উপঢৌকন এনেছেন?
    রাজভৃত্য:
                    আনবে না?
                    আলবৎ রাণীমার কাছেই যখন এসেছেন।
                    কিন্তু জিনিসগুলো যে ঈষৎ অন্যরকম
                    মন্ত্রীমশাইরা শুনলে হয়তো ঘাবড়ে যাবেন।

    মন্ত্রীগণ:
    (একসঙ্গে)
                    এ্যাঁ বলে কীঘাবড়ে যাবোকি রকম কি রকম?
                    শুনি দেখি রকম সকম!
                    শুনি বিবরণ।
    রাজভৃত্য:
                    শোনেন তবেএনেছেন ভর্তাবাটাকালিজিরা।
    মন্ত্রীগণ:
    (অবাক হয়ে চোখ বড় বড় করে)
                    এ্যাঁভর্তাকালিজিরা?
                    ভাবছি আনবে সোনা দানা হীরা!
                    তাই নয় কালিজিরা!!
    রাজা:
    (চোখ বন্ধ করে এতক্ষণে মৃদু হাসছেন।
    ধাঁধাঁটা তাঁর কাছে এবার পরিস্কার হয়ে গেছে)
                    বলো রাজভৃত্য আর কি বলবে বলো?
                    না হয় এখনই ভিতরেতেই চলো।
    রাজভৃত্য:
                    শুধু নয় বাটা ভর্তা কালিজিরা
                    আরো আছে শুটকি ভর্তায় চ্যাপা-পুটিরা।
    মন্ত্রীবর্গ:
    (নাক বন্ধ করে যেন গন্ধ ঠেকাচ্ছে এমনি ভাব করে)
                    এ্যাঁচ্যাপা-পুটিবলে কি?
                    আসলে লোকটি বদ্ধ পাগল নাকি?
    রাজা:
    (ধমকের সুরে)
                    মন্ত্রীরা সব চুপএকদম চুপ।
                    যতো বুদ্ধির ঢেঁকি।
                    হ্যাঁ রাজভৃত্যবাকী বিবরণ দ্রত বলো দেখি।
    রাজভৃত্য:
                    বাটা ভর্তায় এনেছে পটল
                    ঝালে আনবে নিশ্চিত চোখের জল
                    মরিচ বাটা খাঁটি সরষের তেল
                    আজব ব্যাপার স্যাপারযেন মাদারীর খেল।
                    আরো কিসব দারুণ দারুণ জিনিস
                    দেরীতে গেলে কে জানে
                    রানীমাই করে দেবে ফিনিশ।
    মন্ত্রীবর্গ:
    (একযোগে)
                    পটল ভর্তামরিচ ভর্তা?
                    লোকটা পাগল নাকি?
    রাজা:
    (রাগত স্বরে)
                    চুপ তোমরাএক পাল ছাগল নাকি!
    রাজভৃত্য:
                    মহারাজচালমনির পুত্র খুদমনি রায়
                    আপনার সহিত সাক্ষাৎ করিতে চায়
                    আসেন তো আসেননা হয়
                    তিনি যে জুরান নগর যায়।
    মন্ত্রীবর্গ:
                    এ্যাঁকোথায় যায়?
                    জুরান নগর যায়?
                    এটি কি পশ্চিম না পূর্বে
                     কোথায়কোথায়?




    রাজা:
                    না না তা কেনতা কেন?
                    জুরান নগর যাবে কেন?
                    নিশ্চিত চিনেছি তারে
                    তিনি তো নয় যেন তেন।
                    তবে চলো চলো চলো।
    (মন্ত্রীদের কথা কি আর বলবো বলো
    চালাক চতুর পোজ-পাজ যতো বুদ্ধির ঢেঁকি।
    বাইরে পাগড়ী পোশাক ভিতরেতে মেকি।
    এদের নিয়ে দেশ চালানো এত সোজা নাকি!)

    মহারাজ তাড়াহুড়া করে অন্দর মহলে চলে গেলেন।
    অন্দরে ঢুকতেই মহারানীর তাড়া - মহারাজাবললাম না খুদের তেলে ভাজা পোলাও তো গরম গরম খেতে হয়। আর একটু হলেই জুড়িয়ে ঠান্ডা হয়ে যেত। গরমের মজাটাই থাকতো না।
    রাজা আমতা আমতা করে বললেন - রানী তোমার ধাঁধাঁটা বুঝতে একটু সময় লেগেছেতাই।
    যা হোক রাজা খেতে বসে গেলেন সোনায় মোড়ারূপোর মাদুরে। কিন্তু একী আশ্চর্যআজকের সোনার থালা নেইরূপোর চামচ নেইমতি বসানো রূপোর বাটি নেইএসবের বদলে কি আছে জানো?
    মাটির সানকিমাটির খোরাসাধারণ মাটির বাটিতে বউখুদা আর মাটির থালায় সাজানো সারি সারি ভর্তা।
    রানী বউখুদা বারবার পাতে তুলে দিচ্ছেন রাজা খেয়েই যাচ্ছেনখেয়েই যাচ্ছেন। খুদের তেলের পোলাওসাথে প্রচুর শুটকি ভর্তাকালিজিরা ভর্তাচাটগাইয়া মরিচ ভর্তাপটল খোসার ভর্তামূলা-বেলে মাছের ভর্তাতেঁতুলের ভর্তা। ঝালে জিব জ্বলছেপেট জ্বলছেগলার নিচে ঘাম রাজার ভুড়ি গড়িয়ে নামছে।




    ঝালের চোটে রাজার চোখ ছলছল। আঃ উঃ করছেন তিনি। কিন্তুখেতে দারুণ মজা লাগছে। ঝালের কারণে রাজা ঢক ঢক করে বারবার পানি খাচ্ছেন।
    এই বউখুদার কাছে কোথায় লাগে রাজবাড়ীর পোলাওকোর্মাকালিয়াঅবশেষে পেট ভরে বউখুদা খেয়ে রাজা খুশী হয়ে একটা প্রকান্ড ঢেঁকুর তুললেন।  ঢেঁকুরের আওয়াজের ঠ্যালায় সেদিন রাজবাড়ীর জানালাগুলো খট্ খট্ করে কেঁপে উঠেছিল। লোকে ভাবছিলহঠাৎ ভুমিকম্প নাকি?
                    “বউখুদের গল্প হলো শেষ
                                    আহা বেশ বেশ বেশ।




    এপিলগ : ছেলেবেলা বাবা অনেক মজার গল্প বলতেন। আমাদের হাসাতেন। 'চালমনির পুত্রছড়াটা তার কাছ থেকে শোনাসেখান থেকেই মুখস্ত এবং সে থেকেই এই গল্পটার সূত্রপাত। বিক্রমপুরের সন্তান হিসেবেছেলেবেলা থেকেই শুনে আসছিবিক্রমপুরের মানুষদের দাবি 'বউখুদা' (খুদের বৌআ), তাদের আবিষ্কার।  কথাটা পাঠকদের না বললেই নয়।

     http://www.alokrekha.com
     http://www.alokrekha.com

    2 comments:

    1. রেখা আহমেদ শাহDecember 11, 2020 at 8:53 PM

      বদরুদ্দোজা চৌধুরী'র "রাজা খাবেন বউখুদা” গল্প বেশ মজাদার ও ইতিহাসের প্রমান পাওয়া যায়। খুব ভালো লাগলো পড়ে। আলোকরেখা ও লেখককে শুভ কামনা।

      ReplyDelete
    2. এক সময়ের "আমলকি ডাক্তার" এর লিখা "রাজা খাবেন বউ খুদা" পড়তে গিয়ে কিছুতেই ধাঁধাঁটা ধরতে পারছিলাম না ! পড়া শেষে কাল সারারাত ভেবে ভেবে এখন মনে হচ্ছে যে সবসময়ের লাজুক এবং নিভৃত্ত্বে কাজ করা মানুষটি তাঁর এই কল্পগল্পে কোরোনা কালে পাওয়া শিক্ষাটার কথা আমাদেরকে স্মরণ করিয়ে দিতে চেয়েছেন ! পোলাও-কোর্মা আর আড়ম্বর আমাদের কাম্য হলেও প্রকৃত সুখ আর স্বাস্থ্য-রক্ষায় যে কালিজিরার ভর্তা, পটল খোসার ভর্তা, মূলা বেলে মাছের ভর্তা, মরিচ বাটা, তেঁতুলের ভর্তা এসব দিয়ে গরম গরম খুদের পোলাওখেয়ে পরম তৃপ্তিতে জীবন অতিবাহিত করা সম্ভব - এই আভাসটুকু দেয়াই সম্ভবত এই ধাঁধাঁ পরিবেশনার পেছনের কারণ!

      আপনাকে আরেকবার সশ্রদ্ধ সালাম !

      ReplyDelete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ