আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও সুনিকেত চৌধুরীর কবিতা যুগল ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    সুনিকেত চৌধুরীর কবিতা যুগল

    যদি যেতেই হয়!
    - সুনিকেত চৌধুরী

    যদি যেতেই হয় সকালের ট্রেনটাতে চড়ে
    উত্তর কিংবা পশ্চিমের কোন তীর্থে,
    আমি যাব গভীর রাতে
    কাঙ্খিত বাসনা যখন উত্তপ্ত কাঁসার বাসনে পোড়াবে হাত
    ঠিক যেমন স্বর্ণকার পোড়ায় সোনা !

    ধ্যানমগ্ন রক্তকণিকার মেয়াদ যখন শেষ,
    সূর্য্যটা যখন উত্তাপ ছড়ায় না আর
    কাজরী যখন গৃহছাড়া, সমুদ্রে যখন নেই কোন ঢেউ 
    তখনই তো প্রকৃষ্ট সময় তীর্থে যাবার !


    খাঁটি সোনা !
    - সুনিকেত চৌধুরী

    মন পুড়ে সোনা হয় শুনিনি কখনো
    শুনেছি কার কাছে যেন
    পেতে খাঁটি সোনা আগুনে দেয় স্বর্ণকার
    তার কাছে আনা গাঁয়ের যত অলংকার।
    হৃদয়টাকে করতে খাঁটি যেতে হয় কতদূর
    কোন সে স্বর্ণকার ঠিকানা তো বলেনি কেউ !
    কতবার পুড়তে হয় কত জন্ম নিতে হয়
    করজোড়ে নতজানু কত কাল রইতে হয়
    শেখায় নি কেউ আমাদের  ক্লাস রুমে !
    শেওলা কিংবা ময়লা বুঝি জমেছিলো হৃদয়ে আমার
    আর তাই বুঝি তার সময় হলো এমনি করে পুড়ে মরার !
    দিনের বেলায় সময়টাতো পার হয়ে যায় কোনো মতে
    রাতের বেলায় যমের মতন ঘড়ির কাঁটা থেমে থাকে !
    এমনি করে পুড়ে পুড়ে খাঁটি নাকি হবে হৃদয়
    এই আশাতে বসে থাকা হবে কখন যাবার সময়!
    এমনি করে পুড়ে মরে জন্মি যদি পুনর্বার
    নিশ্চিত করে বলতে পারি ঝাঁপ দেবে যে
    সেই আগুনে এই সুনিকেত বারংবার!


    http://www.alokrekha.com

    9 comments:

    1. মানসী বড়ুয়াMay 27, 2017 at 12:53 PM

      আমরা অপেক্ষায় থাকি কবি সুনিকেত চৌধুরীর কবিতার জন্য! এবার যুগল কবিতা ! দারুন অনুভূতি ! দেশের এই ক্রান্তিকালে এই কবিতা যুগল স্বস্তি এনে দিল। বরাবরের মতোই দারুন কবিতা ও অভিব্যক্তি। লেখার চেরা বিচার আজ নাই করলাম ! পড়তেই মনটা ভরিয়ে দিল এই পরম পাওয়া। অলোকরেখাকে অনেক ধন্যবাদ ।আন্তরিক শুভেচ্ছা কবি !

      ReplyDelete
    2. মেঘলা বাণীMay 27, 2017 at 1:19 PM

      কবি সুনিকেত আমাদের প্রিয় কবি। কবি সুনিকেত চৌধুরীর কবিতার এবার যুগল কবিতা ! উত্কৃষ্ট চমৎকার জীবন বোধের প্রকাশ।অপূর্ব বিষয় বস্তু,ভাষাভাব ও শব্দচয়ন ও রচনা শৈলী মিলিয়ে অনবদ্য ও অনিন্দ্য এক কবিতা। আমরা অপেক্ষায় থাকি কবি সুনিকেতের কবিতার জন্য। এই "কবিতা যুগল" মনটা ভরিয়ে দিল। দারুন অনুভূতি কবিতা বার বার পড়তে ইচ্ছে করে। ! আলোকরেখাকে ও কবি সুনিকেত চৌধরী অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা ।

      ReplyDelete
    3. বেশ কয়েকদিন নানান ঝামেলায় আলোকররেখায় যাওয়া হয়নি। আজ এসেই দেখি আমাদের প্রিয় কবি সুনিকেত চৌধুরীর কবিতা তাও যুগল কবিতা !বরাবরের মতোই জীবনের প্রতিফলন ও তার অভিব্যক্তি। উত্কৃষ্ট বিষয় বস্তু,চমৎকার ভাষাভাব অপূর্ব ও শব্দচয়ন ও রচনা শৈলী মিলিয়ে অনবদ্য ও অনিন্দ্য এক কবিতা।

      ReplyDelete
    4. মৃন্ময়ীMay 27, 2017 at 1:38 PM

      ওমা ! আজ দেখি আমাদের প্রিয় কবি সুনিকেত চৌধুরীর যুগল কবিতা ! বরাবরের মতোই দারুন লাগচে পড়তে। জীবনের এমন গভীর ভাবনা, প্রতিফলন ও তার অভিব্যক্তির প্রকাশ।যেমন বিষয় বস্তু, তেমনি চমৎকার ভাষাভাব অপূর্ব ও শব্দচয়ন ও রচনা শৈলী মিলিয়ে অনবদ্য ও অনিন্দ্য এক কবিতা। বড্ডো ভালো। অনেক ভালোবাসা কবি।

      ReplyDelete
    5. কবি সুনিকেত চৌধুরীর একবারে যুগল কবিতা ! এই "কবিতা যুগল" মনটা ভরিয়ে দিল। বরাবরের মতোই দারুন কবিতা ও অভিব্যক্তি। উত্কৃষ্ট চমৎকার জীবন বোধের প্রকাশ।অপূর্ব বিষয় বস্তু,ভাষাভাব ও শব্দচয়ন ও রচনা শৈলী মিলিয়ে অনবদ্য ও অনিন্দ্য এক কবিতা। আমরা অপেক্ষায় থাকি কবি সুনিকেতের কবিতার জন্য ! আলোকরেখাকে ও কবি সুনিকেত চৌধরী অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা ।

      ReplyDelete
    6. মাহমুদ ফারুকীMay 27, 2017 at 1:57 PM

      "ধ্যানমগ্ন রক্তকণিকার মেয়াদ যখন শেষ, সূর্য্যটা যখন উত্তাপ ছড়ায় না আর কাজরী যখন গৃহছাড়া, সমুদ্রে যখন নেই কোন ঢেউ তখনই তো প্রকৃষ্ট সময় তীর্থে যাবার" দারুন গভীর অভিব্যক্তির প্রকাশ এ শুধু কবি সুনিকেত চৌধুরীই লিখতে পারেন। কি বিষয় বস্তু, কি চমৎকার ভাষাভাব অপূর্ব ও শব্দচয়ন ও রচনা শৈলী মিলিয়ে অনবদ্য।

      ReplyDelete
    7. আলোকরেখাকে অনেক ধন্যবাদ আমাদের প্রিয় কবি সুনিকেত চৌধুরীর যুগল কবিতা প্রকাশ করে পড়ার সুযোগ করে দেবার জন্য ! কবিতা অপূর্ব কবিতা ! প্রশংসাবাদী কবিতা ! অপূর্ব। । সুন্দর ! একটা চমৎকার কবিতা ।তার সব কবিতাই দারুন ! জীবনের এমন ভাবনা, প্রতিফলন ও তার ।যেমন ও অনিন্দ্য এক কবিতা। বড্ডো ভালো। অনেক ভালোবাসা কবি।

      ReplyDelete
    8. আনন্দ মাহিতিMay 27, 2017 at 2:30 PM

      কবি সুনিকেত চৌধুরীর "কবিতা যুগল" মনটা ভরিয়ে দিল। বরাবরের মতোই দারুন কবিতা ও অভিব্যক্তি। উত্কৃষ্ট চমৎকার জীবন বোধের প্রকাশ।অপূর্ব বিষয় বস্তু,ভাষাভাব ও শব্দচয়ন ও রচনা শৈলী মিলিয়ে অনবদ্য ও অনিন্দ্য এক কবিতা। আলোকরেখাকে ও কবি সুনিকেত চৌধরী অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা ।

      ReplyDelete
    9. দেবজিৎ চ্যাটার্জিMay 27, 2017 at 4:25 PM

      কবি সুনিকেত চৌধুরীর "কবিতা যুগল"!যদি যেতেই হয়! ও খাঁটি সোনা ! -দুটো কবিতায় অধ্যাত্মবাদ পরিলক্ষিত হয়। পুড়ে পুড়ে খাঁটি সোনা তেমনি মানুষও।একথা সর্ববিদিত। কিন্তু তাঁর কবিতায় অন্যন্য ভাবে তুলে ধরেছেন তা সত্যিই হৃদয়গ্রাহী। এই আশাতে বসে থাকা হবে কখন যাবার সময়! "এমনি করে পুড়ে মরে জন্মি যদি পুনর্বার নিশ্চিত করে বলতে পারি ঝাঁপ দেবে যে সেই আগুনে এই সুনিকেত বারংবার!" -উত্কৃষ্ট চমৎকার। দারুন কবিতা ও অভিব্যক্তি। জীবন বোধের প্রকাশ।অপূর্ব বিষয় বস্তু,ভাষাভাব ও শব্দচয়ন ও রচনা শৈলী মিলিয়ে অনবদ্য ও অনিন্দ্য দুটি কবিতাই ।আলোকরেখাকে ও কবি সুনিকেত চৌধরী অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা ।

      ReplyDelete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ