আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও মেয়েদের মাসিক ও বিষণ্ণতা ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    মেয়েদের মাসিক ও বিষণ্ণতা

    মেয়েদের মাসিক ও বিষণ্ণতা

    ডাঃ শুভাগতা সেন

    উদ্বেগ দুশ্চিন্তা মানুষের দৈনন্দিন জীবনের অংশ। এই উদ্বেগ দুশ্চিন্তা প্রকট আকার ধারণ করলে দুশ্চিন্তা ভীতির সম্মুখীন হয় যা মারাত্মক আকার ধারণ করলে বিষণ্ণতায় পরিণীত হয়। এই বিষণ্ণতা নিয়ন্ত্রণকরা বেশ কঠিন। এটি দীর্ঘক্ষণ স্থায়ী হতে পারে প্রাত্যহিক জীবনে বিভিন্ন সমস্যার সৃষ্টি করে
    নানা ধরনের উদ্বেগ ব্যাধি (anxiety disorder) হয়ে থাকে।যেমন-বিচ্ছেদ উদ্বিগ্নতা ব্যাধি (separation anxiety disorder)   সামাজিক উদ্বেগ(social anxiety)। বিষণ্ণতাও এই উদ্বেগ ব্যাধির (anxiety disorder) -একটা উপসর্গ। এই বিষণ্ণতা নানা কারণে হতে পারে। এর প্রতিকার আমাদের সহানুভূতি ও ভালবাসা।
    অবশ্য  অনেক ক্ষেত্রে ওষুধের  প্রয়োজনীয়তা হয়। তবে আজকের বিষণ্ণতার বিষয় অন্য রকমের। 


    মেয়েদের  শারীরিক কারণে যে বিষণ্ণতা

    আজকের আলোচ্য বিষয় মেয়েদের বিভিন্ন ধরনের শারীরিক কারণে যে বিষণ্ণতা অর্থাৎ মানসিক সমস্যা হয়।বিষণ্ণতা এক প্রকার মানসিক সমস্যা,যার কারণে একজন ব্যক্তি স্থায়ীভাবে দুঃখভারাক্রান্ত অনাগ্রহ বোধ করে থাকে। এই সমস্যাকে মেজর ডিপ্রেশন (major depression), মেজর ডিপ্রেসিভ ডিজঅর্ডার (major depressive disorder ক্লিনিকাল ডিপ্রেশনও (clinical depression) বলা হয়।বিষণ্ণতা অনুভূতি, চিন্তাভাবনা এবং আচরণের উপর প্রভাব ফেলেবিষণ্ণতার কারণে দৈনন্দিক কার্যক্রম ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।এমন কি জীবন অর্থহীন মনে হতে পারে। বিষণ্ণতা কোনো সাধারণ মানসিক দুর্বলতা নয়।কিছু ক্ষেত্রে-এর নিরাময়ের জন্য দীর্ঘ সময় ধরে চিকিৎসা নেওয়ারও প্রয়োজন হয়। তবে সঠিক সময় এই সমস্যার লক্ষণ ও উপসর্গ নির্ণয় ও যত্ন কাউন্সিলিং করলে এই বিষণ্ণতার অবস্থার উন্নতি ঘটে।
    অনেক গুলো শারীরিক কারণের মাঝে সাধারণত মূল দুই প্রকার শারীরিক কারণে মেয়েদের বিষণ্ণতা দেখা দেয়।

    ১) মেয়েদের মাসিক ও বিষণ্ণতা




    ২) প্রসব পরবর্তীকালীন বিষন্নতা । 

                                              





    বয়স সন্ধিকালে তথা যৌবন আগমনের শুরুতে একজন সুস্থ নারীর মাসিক বা ঋতুস্রাব হওয়াটা স্বাভাবিক। সাধারনত ১২-১৬ বছরের মধ্যে মাসিক শুরু হয়ে যায়। কোন কোন মেয়েদের ৯ বছর বয়সে, আবার কারো কারো ১৬ বা তার অধিক বয়সে প্রথম মাসিক হয় ১৩ বছরের পর থেকে প্রতি মাসে (২৮ দিনের চক্রে) একটি ডিম্বাণু পূর্ণতা প্রাপ্ত হয় এবং নানান রকম শরীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়া ঘটতে থাকে। নির্দিষ্ট সময়ের মাঝে এই পরিণত ডিম্বাণুটির নিষেকনা ঘটলে মৃত ডিম্বাণু রক্তক্ষরণের সাথে নির্গত হয়ে যায় শরীর হতে, আর সেই বিশেষ প্রক্রিয়াটিকেই মাসিক বা পিরিয়ড বলা হয়। জন্মের পর একজন মেয়ে শিশুর ডিম্বাশয়ে প্রায় ৩ থেকে ৫ লক্ষ ডিম্বাণু থাকে। বয়স বাড়ার সাথে সাথে অধিকাংশ ডিম্বাণুই নষ্ট হয়ে যায়। একজন নারীর সারা জীবনে প্রায় ৫০০ ডিম্বাণু পূর্ণতা লাভ করে এবং নিয়মিত পিরিয়ড হওয়া সুস্বাস্থ্যের লক্ষণ এবং আমাদের শরীরের অন্তর্বর্তী প্রক্রিয়াগুলিকে পরিষ্কার রাখার উপায়।


    প্রতি মাসিক চক্রের ২৮ দিনে একটি ডিম্বাণু নির্গমনের ফলের ৪৫-৫০ বছর বয়সের ভেতরই প্রায় সব ডিম্বাণু শেষ হয়ে যায়,সেই সঙ্গে এস্ট্রোজেন উৎপন্নও বন্ধ হয়ে যায়। ফলে মাসিক হালকা ও অনিয়মিত হতে থাকে ও এক সময় মাসিক বন্ধ হয়ে যায়।মেয়েদের নিচের পেটে অর্থাৎ তলপেটে জরায়ুর দুপাশে ও জরায়ু থেকে খানিকটা দূরে থাকে দুটো ডিম্বাশয়। আর এই ডিম্বাশয় থেকে গুরুত্বপূর্ণ দুটো হরমোন নিঃসরণ হয়। একটি হলো ইসট্রোজেন; আর একটি হলো প্রজেসটেরোন। ডিম্বাশয় থেকে ডিম্ব নিঃসরণ হয়। ইসট্রোজেন এবং প্রজেসটেরোন-এর প্রভাবেই মাসে মাসে অর্থাৎ ২৮ দিন অন্তর নিয়মিতভাবে এবং চক্রাকারে যে পরিবর্তন ঘটে তারই ফলে হয় মেয়েদের মাসিক ঋতুস্রাব।


    প্রতি চন্দ্রমাস পরপর হরমোনের প্রভাবে পরিণত মেয়েদের জরায়ু চক্রাকারে যে পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে যায় এবং রক্ত ও জরায়ু নিঃসৃত অংশ যোনিপথে বের হয়ে আসে তাকেই ঋতুচক্র বলে। এর তিনটি অংশ--
    ১) মিনস্ট্রাল ফেজ- ৪-৭ দিন স্থায়ী হয়,মিনস্ট্রাল ফেজ এই যোনি পথে রক্ত বের হয়। ৪-৭ দিন স্থায়ী রক্তপাতে ভেঙ্গে যাওয়া রক্তকনিকা ছাড়াও এর সাথে শ্বেত কনিকা,জরায়ুর মুখে মিউকাস,জরায়ুর নিঃসৃত আবরনি,ব্যাকটেরিয়া,প্লাজমিন,প্রস্টাগ্লানডিন ও অনিষিক্ত ডিম্বানু থেকে থাকে।ইস্ট্রোজেন এবং প্রজেস্টেরন হরমোনের যৌথ ক্রিয়ার এই পর্বটি ঘটে। ডিম্বাশয়ের কোনো ডিম্বানু শুক্রানু দ্বারা নিষিক্ত না হলে জরায়ু আবার মিনস্ট্রাল ফেজে চলে যায়। আর এভাবেই পূর্ন বয়স্ক মেয়েদের ঋতুচক্র চলতে থাকে।
    ২) প্রলিফারেটিভ ফেজ-৮-১০ দিন স্থায়ী হয় প্রলিফারেটিভ ফেজ ৮-১০ দিন স্থায়ী হতে পারে। শুধু ইস্ট্রোজেন হরমোনের প্রভাবে এটি হয়। এই সময় জরায়ু নিষিক্ত ডিম্বানুকে গ্রহন করার জন্য প্রস্ততি নেয়।
    ৩) সেক্রেটরি ফেজ- ১০-১৪ দিন স্থায়ী হয়সেক্রেটরি ফেজ টা সবচেয়ে দীর্ঘ। একে প্রজেস্টেরন বা লুটিয়াল ফেজ ও বলা হয়। এটিও ইস্ট্রোজেন ও প্রজেস্টেরন উভয় হরমোনের যৌথ কারনে হয়। এই সময় নিষিক্ত ডিম্বানুর বৃদ্ধির জন্য জরায়ু সর্বোচ্চ প্রস্ততি নিয়ে থাকে।



    ফিজিওলজির সুত্র অনুসারে প্রধান কারনের মধ্যে তিনটি কারন সবচেয়ে বেশী উল্লেখ যোগ্য ।
    ১)  নারী হরমোনের ভারসাম্যতা জনিত কারন -প্রলিফেরাটিভ ফেজের (মাসিক শেষ হওয়ার পর ১০/১২ দিন ধরা হয় ) সময় ইস্ট্রোজেন এবং প্রজেস্টারন দুটি হরমোনের মধ্যে ইস্ট্রোজেন হরমোনের ঘাটতি দেখা দেওয়ায় প্রজেস্টারন হরমোনের মাত্রা একক ভাবে বৃদ্ধি পেয়ে মাসিক পূর্ব সিনড্রম দেখা দেয় ( বিবাহিত ও মেনোপোজের কাছা কাছি বয়সের বেলায় বেলায় ৯৬% )
    বিপরিত দিকে উক্ত মহিলা যদি অবিবাহিত ও বয়স ২০-৩০ এর ভিতরে থাকে তাহলে ইস্ট্রোজেন হরমোনের পরিমান বৃদ্ধি পেয়ে –প্রজেস্টারন হরমোনের পরিমান শূন্যের কোটায় নিয়ে আসে অথবা তা নিষ্ক্রিয় থাকে বিধায় বিধায় মাসিক পূর্ব সিনড্রম দেখা দিয়ে থাকে এবং সে সময় কারও কারও বেলায় সেক্রেটরি ফেইজ কে দিরঘায়িত করে , যেমন মাসিক চক্র ২১ দিনের পরিবর্তে তা ৫/৬ দিন দেরিতে হয়ে থাকে ।

    ২)-হাইপো-থ্যালামিক পিটিইটারি অ্যাড্রিনাল সিস্টেমের দুর্বলতার কারণে হাইপোথ্যালামিক (HPA) পিটিইটারি অ্যাড্রিনাল সিস্টেমের প্রধান কাজ হল,মস্তিস্কের সেরেবেলাম হতে নিউরোট্রান্সমিটার জনিত কারনে প্রজনন,মিজাজ বা আচরণ,যৌন আবেগ,হজম শক্তি, ইমিউনিটি শক্তি ইত্যাদি নিয়ত্রন করা -কিন্তু যদি কোন কারনে এই সিস্টেম সমুহ কাজ না করে অথবা দুর্বল বা নিষ্ক্রিয় থাকে তাহলে সঠিক ভাবে নারী হরমোনের ভারসাম্যতা রক্ষা করতে পারেনা বরং মস্তিক্সের সেরেটোনিন হরমোনের ক্ষয় বৃদ্ধি করে মানসিক ও শারীরিক বিভিন্ন সমস্যা দেখা দেয় এবং বেশির ভাগ ক্ষেত্রে তা প্রিম্যান্সট্রুয়েল ডিস্পরিক ডিসঅর্ডারে চলে যায় ( premenstrual phosphoric disorder (PMDD)

    ৩)ভিটামিন এবং পুস্টিহিনতা মানসিক ভারসাম্যতা:গবেষণা অনুসারে ৭৩% বেলায় ভিটামিন বি-৬'র স্বল্পতা,রক্তশূন্যতা,ম্যাগনেসিয়াম, আয়রন,ক্যালসিয়াম,জিঙ্ক ইত্যাদি খনিজ)বা অনিয়ন্ত্রিত হজম শক্তি, লবণাক্ত খাবার, চা-কফি ইত্যাদি কারনেই হয়ে থাকে ।এ ছাড়া ও বংশগত (যেমন মায়ের হলে মেয়ের ও হতে পারে ),পারিবারিক সহিংসতা, ভ্যাক্টিম এবং রেপ, শারীরিক ও মানসিক আঘাত, অতিরিক্ত উদ্ধেগ , মানসিক চাপ এবং ক্লান্তি , সিজোপেনিয়া এবং বিপোলার সিন্ড্রেম,ডিসমেনোরিয়া,ওভারিয়ান সিনড্রম, থায়রয়েড জনিত সমস্যা , অনিয়ন্ত্রিত পায়খানা (IBS), মাংশপেশি জনিত বাথ ব্যাধি ইত্যাদি কারনে হতে পারে ।



    মাসিক পূর্ব কিছু শারীরিক লক্ষণ ও উপসর্গ 

    • অস্থিসন্ধি অথবা মাংসপেশীতে ব্যথা
    • মাথা ব্যথা
    • অবসাদ
    • শরীরে রস জমে ওজন বৃদ্ধি পাওয়া
    • পেট ফুলে যাওয়া (Abdominal bloating)
    • স্তনে ব্যথা
    • মুখে ব্রণ বা একনি বেড়ে যাওয়া
    • কোষ্ঠকাঠিন্য অথবা ডায়রিয়া


    মাসিক পূর্ব কিছু মানসিক লক্ষণ ও উপসর্গ

    • দুশ্চিন্তা ও উদ্বিগ্নতা
    • বিষন্নতা
    • হঠাৎ কেঁদে ফেলা
    • মেজাজ উঠা-নামা করা এবং ক্রোধান্বিত হওয়া
    • খাবারে রুচির পরিবর্তন হওয়া (Appetite Changes and food cravings)
    • নিদ্রাহীনতা বা ঘুমের সমস্যা হওয়া
    • সামাজিক কর্মকান্ড থেকে দূরে থাকা (Social withdrawn)
    • অসচেতনতা

     মাসিক পূর্ব বিষণ্ণতায় ও মানসিক কষ্ট

    মাসিক শুরু হওয়ার ১০ থেকে ১৫ দিন পূর্বে যে মানসিক এবং আচরণগত সমস্যা দেখা দেয় , তাকেই মাসিক পূর্ব বিষণ্ণতা লক্ষণ বা Pre-menstrual- syndrome-কে সংক্ষেপে PMS বলা হয়এই সময়ে মেয়েদের আচরণে বিশেষ কিছু লক্ষণ দেখা যায়।মেয়েরা বাস্তব জগতের চেয়ে কাল্পনিক জগতে বেশি বসত করে। মেজাজে স্বাভাবিক থাকে নানিজেদের মানসিক আচরণে এই নরম আবার কোনো কারণ ছাড়াই রাগান্বিত হয়ে ওঠে। কখনও উৎফুল্ল আবার কখনও বিষণ্ণ কোন যুক্তি কাজ করে নাকিন্তু এই বিষয়টি খুব সহানুভুতিসহ গুরুত্ব দেওয়া বিশেষ প্রয়োজন।আমাদের মধ্যে একটা প্রবনতা দেখা যায় যে,মানসিক কোন কষ্ট বা বিষণ্ণতাকে কোন সমস্যা বা রোগ হিসাবে না দেখা পরিবারের কারো সামান্য ঠাণ্ডা জ্বর বা সর্দি কাশি নিয়ে আমরা যতটা উদ্বেগে থাকি।


    মানসিক রোগ বা বিষণ্ণতাকে একটা বাতিক বা পাগলামি হিসাবে ধরে নিয়ে তার কোন প্রতিকারের প্রয়াস করি না।মাসিক পূর্ব বিষণ্ণতাকে মনের খামখেয়াল অথবা অবসর বিনোদন  শুধু নয় এমনও মনে করি প্রেমে পড়েছে অথবা নেশা জাতীয় কিছু খেয়েছে! অনেক ক্ষেত্রে তার এই আচরণকে বিদঘুটে ব্যাপার ভেবে মারধর করতেও বাকি রাখি না। অথচ এই সময় মেয়েটির প্রতি এই বিশেষ মাধুর্যে পূর্ণ,সহায়ক,সাহায্যকারী ও সহানুভূতিমূলক ব্যবহার সহানুভূতিশীল হওয়া অতীব জরুরী।এখন সময় এসেছে আমাদের গতানুগতিক মানসিকতা বদলাবার । এ সম্পর্কিত আরও বিস্তারিত জানা জরুরী। শুধু নারীর জন্য নয়,বাবা ,ভাই পুরুষ সঙ্গীটিরও জানতে হবে।



    নারীর মাসিকের সাইকেলের সময় বিশেষ করে মাসিকের আগের কিছুদিন প্রিমেন্সট্রুয়াল সিন্ড্রম বা পি এম এস এর প্রভাব দেখা যায় মাসিকের ৫ থেকে ১১ দিন আগে থেকে শুরু হয়ে অনেক সময় এর প্রভাব পরের বার মাসিক শুরু হওয়ার আগ পর্যন্ত চলতে থাকে এর কারণ আসলে এখনও অজানা তবে অনেক গবেষক ধারণা করেন, মাসিক চক্রের সময়ের হরমোন মাত্রার পরিবর্তনের কারণে এরকম হয়ে থাকে এস্ট্রোজেন এবং প্রগেস্টেরনের মাত্রাও বেড়ে যায় এসময় হরমোনের মাত্রা বেড়ে যাওয়ার কারণে যখন তখন মেজাজ খারাপ হওয়া, উদ্বিগ্নতা, বিরক্তি তৈরী হতে পারে এই সময়ে মেয়েদের মধ্যে ডিপ্রেশন বা অবসণ্নতা দেখা যায়। সে তার সব কথা খুলে বলতে পারে না। তার মনে এক ধরনের ভয় ও শঙ্কা কাজ করে। পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে সে আলাদা থাকতে পছন্দ করে। আবেগপ্রবণ এ সময় প্রকট আকার ধারন করতে পারে ।


    তাই মাকে ও পরিবারের সকল সদস্যকে বন্ধু হতে হবে। তাকে সময় নিয়ে মেয়ের সমস্যা শুনতে হবে। অভিভাবকদের লক্ষ রাখতে হবে মেয়েটি. শরীরে আসা পরিবর্তন সম্পর্কে সচেতন করতে হবে। কী ধরনের অনুভূতি ছিল সেসব বিষয় আলোচনা করতে হবে, কীভাবে সমস্যা থেকে উত্তরণ হয়েছিল তাও তাকে বলতে হবে। মাসিক কোন লজ্জার ব্যপার নয় মেয়েদের অত্যন্ত স্বাভাবিক বিসয়।সুতরাং লজ্জা মনে করে রাখঢাক না এই মাসিক পূর্ব বিষণ্ণতা লক্ষণ বা Pre-menstrual- syndrome-অর্থাৎ PMS-কে আমাদের বিবেচনায় আনা অতিব প্রয়োজন। সময় মত ব্যবস্থা না নিলে এই রোগ পরবর্তীতে মারাত্মক হতে পারে।

    http://www.alokrekha.com

    7 comments:

    1. মিতালি রহমানJune 28, 2017 at 8:46 PM

      মেয়েদের মাসিক ও বিষণ্ণতাকে আমার লজ্জা মনে করে রাখঢাক না মাসিক পূর্ব বিষণ্ণতা লক্ষণ বা Pre-menstrual- syndrome-অর্থাৎ PMS-কে আমাদের বিবেচনায় আনা অতিব প্রয়োজন।

      ReplyDelete
    2. মায়া খানJune 28, 2017 at 10:03 PM

      মেয়েদের মাসিক ও বিষণ্ণতা নিয়ে লেখাটা কি দারুন ও তথ্য নির্ভর। আলোকরেখাকে অনেক সাধুবাদ জানাই এ ধরণের শিক্ষা মূলক লেখা প্রকাশ করার জন্য।

      ReplyDelete
    3. মোহন খানJune 28, 2017 at 10:21 PM

      মেয়েদের মাসিক ও বিষণ্ণতা নিয়ে লেখাটা এত গুরুত্বপুর্ন এবং এই ব্যাপারে সকলের জানা প্রয়োজন। লেখাটা অতি বিস্তারিত ও তথ্য নির্ভর। আলোকরেখাকে অনেক সাধুবাদ জানাই এ ধরণের শিক্ষা মূলক লেখা প্রকাশ করার জন্য।

      ReplyDelete
    4. মিতা হকJune 28, 2017 at 10:40 PM

      আলোকরেখাকে আমরা মেয়েরা অনেক ধন্যবাদ জানাই মেয়েদের মাসিক ও বিষণ্ণতা নিয়ে লেখার জন্য। লেখাটা এত অত্যাবশ্যক এবং এই ব্যাপারে সকলের জানা খুব প্রয়োজন সবার। আমরা এই নিয়ে কথা বলতে দ্বিধাবোধ করি। অথচ আজ আমাদের এই নিয়ে বেশি বেশি করে লেখা। লেখাটা অতি বিস্তারিত ও তথ্য নির্ভর। আলোকরেখাকে অনেক সাধুবাদ জানাই এ ধরণের শিক্ষা মূলক লেখা প্রকাশ করার জন্য।

      ReplyDelete
    5. মমতা পারভীনJune 28, 2017 at 10:51 PM

      ডাঃ শুভাগতা সেনকে অনেক ধন্যবাদ! মেয়েদের মাসিক ও বিষণ্ণতা নিয়ে অতি বিস্তারিত ও তথ্য নির্ভর লেখার জন্য। আলোকরেখাকে অনেক সাধুবাদ জানাই এ ধরণের শিক্ষা মূলক অত্যাবশ্যক এবং যা নিয়ে কথা বলতে দ্বিধাবোধ করি এমন লেখা প্রকাশ করার জন্য।

      ReplyDelete
    6. মিলন সেনJune 29, 2017 at 12:22 AM

      ডাঃ শুভাগতা সেন মেয়েদের মাসিক ও বিষণ্ণতা নিয়ে বিস্তারিত ও তথ্য নির্ভর লিখেছেন। অনেক ধন্যবাদ! অনেক কিছু জানতে পারলাম। এখন সময় পাল্টাবার। সেই পাল্টানোর সময়ে আলোকরেখাকে অনেক ধন্যবাদ জানাই এ ধরণের উপচিত বিষয় উত্থাপনের জন্য।

      ReplyDelete
    7. হেলাল মেহরানSeptember 16, 2018 at 5:29 PM

      মেয়েদের মাসিক ও বিষণ্ণতা নিয়ে লেখাটা কি দারুন ও তথ্য নির্ভর। আলোকরেখাকে অনেক সাধুবাদ জানাই এ ধরণের শিক্ষা মূলক লেখা প্রকাশ করার জন্য।

      ReplyDelete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ