আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও ভোর হলো – দোর খোলো! ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    ভোর হলো – দোর খোলো!














    ভোর হলো – দোর খোলো!
    সুনিকেত চৌধুরী

    সঞ্চিত বিষাদের পরতে পরতে লিখা আছে যত কথা
    বিদায় ক্ষণের উদ্বেলিত নিঃস্বাসের যত থেমে যাওয়া
    মায়ের কোলে মাথা রেখে বুড়ো ছেলের যত অশ্রুকণা
    সন্মোহিত সন্ধ্যায় সুবর্ণার কাছে ফিরে যাওয়ার যত আকুতি
    তার সবটুকু তোমাকে দিলাম উন্মোচিত বিস্ময়ে !
    বিনিময়ে তুমি দিও তোমাকে, শুধু তোমার সবটুকু
    এতটুকু যেন যায়না থেকে হৃদয়ের কোন কন্দরে
    মাঠের ঘাসে, ঘরের কোণে, কিংবা দূরের কোন বন্দরে!
    বাড়িয়ে দেয়া আমার হাতে রাখ তোমার হাত
    বকুল ফুলের গন্ধ আসুক, আসুক যত ভোরের আলো
    পাখীরা সব বলে উঠুকভোর হলোদোর খোলো!

     http://www.alokrekha.com

    5 comments:

    1. মেহেদী হাসান সৌমিFebruary 1, 2018 at 3:25 PM

      ঘুমাতে যাবার আগে প্রিয় কবি সুনিকেতের কবিতা। খুব ভালো লাগলো। কালকের সকাল হোক বকুল ফুলের গন্ধ আসুক, আসুক যত ভোরের আলো পাখীরা সব বলে উঠুক “ভোর হলো – দোর খোলো”! ভালো থাকবেন কবি। আলোকরেখাকে ধন্যবাদ।

      ReplyDelete
    2. কামরুজ্জামান হীরাFebruary 1, 2018 at 5:04 PM

      আলোকরেখাকে ধন্যবাদ কবি সুনিকেত চৌধুরীর এমন আশাব্যঞ্জক কবিতা প্রকাশ করার জন্য। আমাদের জীবনের সঞ্চয় স্মৃতি।সেই স্মৃতির প্রতিদানে ভোরের আলো.কি দারুন চাওয়া অপূর্ব ভাব ভাষা যা শুধু অন্তরের কথা নয় প্রশংসার দাবিদার।

      ReplyDelete
    3. মমতা রায় গুপ্তFebruary 1, 2018 at 6:50 PM

      আজ বেশ কদিন ধরে কবি সুনিকেত চৌধুরীর কবিতা আলোকরেখায় প্রকাশিত হচ্ছে । আমি উম্মুখ হয়ে থাকি কবে কবি সুনিকেত চৌধুরীর লেখা পাব? তিনি আসলেও প্রেমের কবি। সুনিকেত চৌধুরীর সেদিন ছিল ভোর হলো – দোর খোলো! ! ! আবার তারই প্রমান ।তার কবিতায় থাকে ভালোবাসার বেদনা বিধুর আবার কখনো প্রেমের ছন্দে সুললিত আবার সাহসী প্রেমিক। অনেক ভালবাসা কবি।

      ReplyDelete
    4. সেলিনা সুলতানাFebruary 1, 2018 at 10:26 PM

      এত ভালো লাগলো কবিতাটা পড়ে। আমি কবি সুনিকেতের অনেক বড় ভক্ত। তার এক একটা কবিতা বার বার পড়ি। অনেক ভালো থাকবেন কবি ! লিখবেন আর আমাদের আরো অনেক অনেক ভালো কবিতা পাই।অনেক ধন্যবাদ শুভেচ্ছা ও ভালবাসা আলোকরেখাকে !!

      ReplyDelete
    5. ঋতু মীরFebruary 4, 2018 at 1:04 AM

      ‘ভোর হোল- দোর খোল’- ভালবাসার অন্তর্নিহিত দ্যোতনা, প্রেমের এক গভীর আকুতি প্রকাশে মন ছুঁয়ে যাওয়া এক কবিতা । ভালবাসা, প্রেম প্রকাশে কবির বোধ যেন এক দেউলিয়া কাঙাল প্রেমিক। “তার সবটুকু তোমাকে দিলাম উন্মোচিত বিস্ময়ে! বিনিময়ে তুমি দিও তোমাকে, শুধু তোমার সবটুকু, এতটুকু যেন যায়না থেকে হৃদয়ের কোন কন্দরে” । উজাড় করা ভালবাসা দেয়া নেয়ার প্রতিজ্ঞায় কবির অভিব্যক্তি বর্ষা স্নিগ্ধ রিমঝিম উতলা আমেজে বিহ্বল করে দেয়। শুভকামনা কবি! ধন্যবাদ আলোকরেখা !

      ReplyDelete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ