আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও নিবাস কোথায় তোমার? ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    নিবাস কোথায় তোমার?

    নিবাস কোথায় তোমার?
    সুনিকেত চৌধুরী।


    বিকশিত ভ্রূণের দিকে ছুড়ে দেয় প্রশ্নবাণ
    মোহাচ্ছন্ন মহারথী সাংবাদিক
    "নিবাস কোথায় তোমার?"
    আদরের কথা বল,
    বল নিশুতি রাতে কিংবা দ্বিপ্রহরে  
    চাই নিরাপদ পদচারণার গ্যারান্টি!
    এতো দাবী এত চাওয়া
    সব হবে দেয়া এখন যদি বল
    "নিবাস কোথায় তোমার?"
    সকালের সবুজাভ রোদে
    চেয়ে থাকা সব ' টা মানুষের
    চোখে রেখে চোখ, ভ্রূণ বলে অকাতরে
    বনানীর ওই পাড়ে গৃহ তোমাদের,
    বসত-বাড়ী আর পরিচয় পত্রে
    লেখা ঠিকানা তোমার। 
    "আমার ঠিকানা মাতৃগর্ভ,
    আমার মায়ের ওম!
    মায়ের সাথে নাড়ীর যোগ
    নারী আমার মা!"
    সহস্র যোজন দূরে ধেয়ে আসা সমুদ্দুরে
    ঠিকানার চিরকুট ফেলে দাও ,
    বসে যাও প্রার্থনায় সমুদ্রতটে। 
    ফেলে দাও যুক্তি যত
    মায়ের সমান, নারীর সমান
    হবেনাতো কেউ কোনোদিন !
    ভুল যত অংক তোমার
    সম অধিকার প্রাপ্তি স্বীকার
    সে শুধু ঠুলি পড়া চোখে দেখা
    পৃথিবী তোমার !

     http://www.alokrekha.com

    7 comments:

    1. যখন কোন কবিতা বা লেখা পড়ে ভাবতে বাধ্য করে সেটাকে ভাল লেখা বলা যায়। এখানেই কবির বা লেখকের সাথকতা। প্রিয় কবি সুনিকেত চৌধুরীর নিবাস কোথায় তোমার?! তেমনি একটা কবিতা যা ভাবায় - ছোট্ট একটা ভ্রূণ তার ক্ষমতা অসীম ।তার যোগসূত্র মায়ের নাড়ীর সাথে তার নিবাস মায়ের গর্ভে-তার অনেক চাওয়া অনেক দাবী।ছোট্ট ভ্রূনটিও জানে তার মায়ের সমান কিছু নেই। আমরা পূর্ণাঙ্গ মানুষ এখন আমাদের ভাববার সময় এসেছে আর কত চোখে ঠুলি পরে থাকবো। প্রাণকাড়া কি ভাব।,দৃঢ় বক্তব্য আর শব্দ দিয়ে ভাবার প্রয়োগ।দারুন কবিতা ,অনেক শুভেচ্ছা কবি

      ReplyDelete
    2. Kunjolal Ptombar ShahaMarch 9, 2018 at 4:55 PM

      বড্ডো ভালো লাগলো, চমত্কা, কবিকে ধন্নবাদ আর অভিনন্দন।

      ReplyDelete
    3. রফিকুল ইসলামMarch 9, 2018 at 4:56 PM

      চমৎকার রচনাশৈলী ও স্বতন্ত্র ভাব ও ভাষা প্রয়োগে চমৎকার একটা কবিতা ।কাব্যিক ছন্দোবদ্ধ দারুন কবিতা। অনেক শুভেচ্ছা কবি। আপনি ভালো থাকুন আরো লিখুন !

      ReplyDelete
    4. রেহনুমা কবিরMarch 9, 2018 at 5:26 PM

      প্রিয় কবি সুনিকেত চৌধুরীর নিবাস কোথায় তোমার?! এখানে কবি যে ভাবধারা তুলে ধরেছেন তা অনন্য। আমরা যা পারিনা সেইটা একটা ভ্রূণের মাধ্যমে প্রকাশ করেছেন। নিরাপদ চলার পথ নির্যাস জীবন মায়ের সঠিক সম্মান। দৃঢ় বক্তব্য আর শব্দ দিয়ে ভাবার প্রয়োগ। অনেক অনেক শুভ কামনা আপনার জন্য।

      ReplyDelete
    5. অনেকদিন পরে একটা সুন্দর কবিতা পড়লাম , কবিকে শুভেচ্ছা

      ReplyDelete
    6. ভুল যত অংক তোমার
      সম অধিকার প্রাপ্তি স্বীকার
      সে শুধু ঠুলি পড়া চোখে দেখা
      পৃথিবী তোমার !
      একমাত্র শুনিকেত চৌধুরী পারেন এমন সুন্দর করে কথা গুলো বলতে।
      কবিকে অনেক ভালোবাসা

      ReplyDelete
    7. ঋতু মীরMarch 12, 2018 at 12:39 AM

      বিশ্ব নারী দিবসের এই লগ্নে বিষয়পযোগী কবিতা ‘নিবাস কোথায় তোমার' এক অসামান্য আবেদন তৈরি করেছে। সকালের সবুজাভ রোদে চেয়ে থাকা সব ক’টা মানুষের, চোখে রেখে চোখ, ভ্রূণ বলে অকাতরে "আমার ঠিকানা মাতৃগর্ভ...নারী আমার মা!"। নারীর প্রতি সহিংসতা, অবমাননা আর অধিকার হরণের এই ক্রান্তি লগ্নে সুনিকেত চৌধুরীর কবিতা যেন এক দীপ্ত প্রতিজ্ঞায় নারীর মর্যাদাগত অবস্থানকে মর্যাদার এক হিমাদ্রি শিখরে পৌঁছে দেয়। ‘...সম অধিকার প্রাপ্তি স্বীকার, সে শুধু ঠুলি পড়া চোখে দেখা, পৃথিবী তোমার’- কবিতার জোড়াল, বলিষ্ঠ ঘোষণা যেন সমাজকে ঝাঁকুনি দেয়-‘মায়ের সমান, নারীর সমান, হবেনাতো কেউ কোনোদিন!’ কবিতার ভাবার্থ একজন নারীকে কাঙ্ক্ষিত সম্মান দানে ভীষণভাবে আশ্বস্ত করে । সেখানেই কবির সফলতা, সার্থকতা ! ধন্যবাদ কবি!

      ReplyDelete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ