আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও শ্রাবণ কে চাই"। ______________গীতালি চক্রবর্তী । ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    শ্রাবণ কে চাই"। ______________গীতালি চক্রবর্তী ।


















    শ্রাবণ কে চাই"
    ______________গীতালি চক্রবর্তী

    বসন্ত এসে গেছে,চারিদিকে ফুলেল উৎসব,
    অথচ, আমি বসে আছি সন্ধ্যার আঁধার
    মেখে গায়!
    মনে অকাল ক্ষরা, রক্তে নেই লেশমাত্র তারল্য।
    পাথরের বুকেও হাসে দূর্বাদল, ঢাকে সবুজের আস্তরনে,
    মনে জন্মে না কিছু,
    বন্ধ্যাত্ব এর আভরন।
    দু'চোখে নেই বর্ষা, আছে কাঠফাঁটা
    রোদ্দুরের অসহ্য দহন,
    সেথায় লেগেছে আগুন,
    বসন্তের মিষ্টি হাওয়া পৌঁছেনা সেথা!
    জীবন বিহীন কালো মেঘের অন্তর,
    ফল্গুতে নেই নিরন্তর  স্রোত,
    নিশীথ রাতে নিঃসঙ্গের চোখেও লেগেছে
    সে- এক- আকাল!

    তবে কী সমস্ত জগত আজ মরুময়?
    তৃষিত হৃদয় পাতে অঞ্জলি,
    যেটুকু পায় তাতে শুদ্ধতার অভাব,
    মেটে না তৃষা!
    হে শ্রাবণ,এমন রুক্ষ দিনে
    বড় প্রয়োজন তোমায়!
    তোমার ধারার কাছে নত ' উদ্ধত অনল প্রবাহ,
    নবনীত ' শতাব্দীর হৃদয়,
    মাথা তুলে হেসে উঠুক দুটি সবুজ কিশলয়।

     http://www.alokrekha.com

    8 comments:

    1. বাঁধন সরকারSeptember 13, 2019 at 4:05 PM

      গীতালি চক্রবর্তী'র "শ্রাবণ কে চাই" । চমৎকার অনবদ্য কবিতা।জীবনের এমন গভীর ভাবনা, প্রতিফলন ও তার অভিব্যক্তির প্রকাশ।যেমন বিষয় বস্তু, তেমনি চমৎকার ভাষাভাব অপূর্ব ও শব্দচয়ন ও রচনা শৈলী মিলিয়ে অনবদ্য ও অনিন্দ্য এক কবিতা। বড্ডো ভালো। অনেক ভালোবাসা কবি। ভালো থাকবেন কবি।

      ReplyDelete
    2. আসিফ আহমেদSeptember 13, 2019 at 4:15 PM

      গীতালি চক্রবর্তী'র "শ্রাবণ কে চাই" । চমৎকার অনবদ্য কবিতা। ভালো থাকবেন কবি।

      ReplyDelete
    3. নন্দিতা সেনSeptember 13, 2019 at 7:33 PM

      গীতালি চক্রবর্তী'র "শ্রাবণ কে চাই" । অনিন্দ্য এক কবিতা। আমরা অপেক্ষায় থাকি কবি ভালো কোন কবিতার জন্য। মনটা ভরিয়ে দিল। দারুন অনুভূতি কবিতা বার বার পড়তে ইচ্ছে করে। ! আলোকরেখাকে ও কবিকে অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা।

      ReplyDelete
    4. কবিতা রায়September 14, 2019 at 2:43 PM

      গীতালি চক্রবর্তীর "শ্রাবণ কে চাই" । সমৃদ্ধশালী কবিতা। "পাথরের বুকেও হাসে দূর্বাদল, ঢাকে সবুজের আস্তরনে,এ মনে জন্মে না কিছু, বন্ধ্যাত্ব এর আভরন।দু'চোখে নেই বর্ষা, আছে কাঠফাঁটা রোদ্দুরের অসহ্য দহন,সেথায় লেগেছে আগুন,বসন্তের মিষ্টি হাওয়া পৌঁছেনা সেথা "-তাই কবি শ্রাবণের ধারার অপেক্ষায়। অতীব সুন্দর কবি। অনেক অনেক শুভ কামনা কবি।

      ReplyDelete
    5. মীরা বসুSeptember 14, 2019 at 2:45 PM

      গীতালি চক্রবর্তীর "শ্রাবণ কে চাই" । দীপ্তিশিীল, সমৃদ্ধ কবিতা। কবির মনটা ভরিয়ে দিল। দারুন অনুভূতি কবিতা বার বার পড়তে ইচ্ছে করে। ! আলোকরেখাকে ও কবিকে অভিনন্দন।

      ReplyDelete
    6. বাঁধন সরকারSeptember 14, 2019 at 2:47 PM

      গীতালি চক্রবর্তীর "শ্রাবণ কে চাই" । চমত্কার, অপরূপ কবিতা। কবির হৃদয় অনুভূতির গভীর প্রকাশ। "মনে অকাল ক্ষরা, রক্তে নেই লেশমাত্র তারল্য।" এই একটি লাইন আমার কাছে পুরো কবিতার শ্রেষ্ঠ পংতি । ততক্ষন রক্তে জীবন -জমাট বাঁধা রক্তে জীবনের ইতি। কবির ভিতরের জীবনবোধকে দারুণভাবে অঙ্কিত করেছেন অনেক অনেক শুভেচ্ছা কবি।

      ReplyDelete
    7. রায়হান শফিকSeptember 14, 2019 at 2:50 PM

      গীতালি চক্রবর্তীর "শ্রাবণ কে চাই" । অপরূপ কবিতা। কবির হৃদয় নিংড়ানো অনুভূতির কি গভীর প্রকাশ।গহীন জগতে কখনো ফুলেল বসন্ত যদি আবার কখনো জোয়ার ভাটায় আবার খরস্রোতা তৃষ্ণা মত আঁকড়ে ধরে। কবির অভিমানী চেতনার অভিব্যক্তি এই কবিতা। নিদারুন একটা কবিতা। অনেক শুভেচ্ছা কবি।

      ReplyDelete
    8. গীতালি চক্রবর্তীর "শ্রাবণ কে চাই" । কবিতায় কবি অপরূপ রূপে নিজের ভেতরের তৃষ্ণা বর্ণনা করেছেন। বসন্ত এসে গেছে,চারিদিকে ফুলেল উৎসব,অথচ, প্রয়াসই ঘটে আমরা বসে থাকি সন্ধ্যার আঁধার গায় মেখে , দারুন। অনেক ভালোবাসা কবি।

      ReplyDelete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ