আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও এক মুঠোয় বন্দী যখন ---------------- সানজিদা রুমি ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    এক মুঠোয় বন্দী যখন ---------------- সানজিদা রুমি


    এক মুঠোয় বন্দী  যখন
    সানজিদা রুমি 

    নরম মসৃন  দুটি দেহ একসাথে এক মুঠোয় বন্দী  যখন
    অধরে অধর এলোমেলো নিঃশ্বাস বুকের স্পন্দন।
    অঝোর বর্ষণ প্লাবিত দুজন---
    দুটি দেহ  একসাথে এক মুঠোয় বন্দী যখন।
    দুজনে এতো কাছাকাছি কেবল তুমি আর আমি
    স্পর্শানুভূতি  সুরের আধার  -----

    অজানা গুপ্ত ধনের প্রত্নতত্ত্ববিদ
    খুঁজে ফেরে  অজানা দ্বীপ।
    লজ্জা অবনত চোখ ছুঁয়ে যায় সারা শরীর
    উষ্ণতায় গোলে যাওয়া বরফ ছুঁয়ে যাওয়া কিনারা নদীর।
     শুন্য বিধায় হাওয়ায় ভাসা
    অবিনশ্বরের সাথে কথা বলা --
    তারই সাথে বিলীন হওয়া
    তুমি আমি আর  ঈশ্বর মিলে মিশে একাকার
    অজানা বাসর।


    সানজিদা রুমি কর্তৃক গ্রথিত http://www.alokrekha.com

    7 comments:

    1. শর্মিষ্ঠা ব্যানার্জিFebruary 4, 2020 at 4:47 PM

      সানজিদা রুমি এক মুঠোয় বন্দী যখন কবিতায় মিলনের যে রূপ অংকিত করেছেন তা সত্যি অনন্য বাস্তব। উপমা নন্দিত। দুটি দেহ একসাথে এক মুঠোয় বন্দী যখন কি অনবদ্য উপমা । সরল সুন্দর অধ্যাত্ম কবিতা। মানবিক মিলকে ঈশ্বরের সাথে মিলনের তুলনা করেছেন কবি। দারুন ভালো লাগলো। ভালো থেকেন কবি। শুভ কামনা।

      ReplyDelete
    2. মোহন সিরাজীFebruary 4, 2020 at 5:06 PM

      সানজিদার লেখা আমার খুব ভালো লাগে। অসামান্য বিষয়কে অতি সাধারণ ভাবে পরিবেশন করে। এক মুঠোয় বন্দী যখন কবিতায় মিলনের যে বর্ণনা রয়েছে তা অপূর্ব। মানব দেহ মিলনের সাথে অবিনশ্বরের সাথে মিলনের সাথে তুলনা অপ্রতিম। খুব ভালো লাগলো। অনেক ভালো থেকো। আরো লেখো।

      ReplyDelete
    3. আপনার লেখাগুলো পড়ে খুবই ভালো লাগে । আমাদের ভাবনার সাথে যোগসূত্র রয়েছে । আলোক রেখা" য় আপনার লেখাগুলো পড়ি সর্বদা । আজকের লেখা কবিতাটা আমার আছে অপূর্ব লেগেছে। মানব মিলনের যে তত্ব উপস্থাপন করেছেন উচ্চ মার্গের লেখা। শুভ কামনা করি।

      ReplyDelete
    4. মেধা বন্দোপাধ্যায়February 4, 2020 at 5:57 PM

      সানজিদা রুমির "এক মুঠোয় বন্দী যখন।" কবিতাটা পড়ে খুব ভালো লাগলো। মিলনের সিঞ্চিত প্লাবনে ভেসে যায় দুকূল। মিলিত হয় অধরের সাথে অধরের মিলন নিঃশ্বাসের সাথে মিলে মিশে একাকার হয়ে যায়। দুজনের বুকের স্পন্দন এক তন্ত্রীতে বেজে ওঠে। মিলনে শূন্য হয়ে মিলে মিশে একাকার হয়ে যায় অবিনশ্বরের সাথে। দারুন অনুভূতি। ভালো থেকো। আরো সুন্দর সুন্দর লেখো।

      ReplyDelete
    5. রুমির এই কবিতাটি আমার অনুভূতিতে ভীষণ নাড়া দিয়েছে
      খুব নির্বাচিত শব্দ চয়ন এবং কবিতামালার ঠাস বুনন
      একবিন্দু মানব প্রেম অনু থেকে পরমাণুর সাথে মিশে যাওয়া
      মানব প্রেমবন্ধন থেকে অবিনশ্বরের অসীম প্রেমের সাগরে ভেসে যাওয়া তেমনি একটি চিত্রকল্প
      কবিতায় এতো অল্পতে একটি জটিল দর্শনকে প্রকাশ করে মুন্সিয়ানার পরিচয় দিয়েছে
      বহুমাত্রিকতা কবিতাকে উচ্চমার্গে পৌঁছে দিয়েছে
      সাধুবাদ রুমি
      তোমার কাছে এরকম কবিতা আরও চাই

      ReplyDelete
    6. সখী ভালবাসা এরে কয়

      ReplyDelete
    7. আহসান হাবীবFebruary 10, 2020 at 8:49 PM

      এক মুঠোয় বন্দী যখন কবিতায় সানজিদা রুমি দেহ মিলনের যে চিত্র অঙ্কন করেছেন তা আধ্যাত্বিক। দুই দেহের মাঝে ঈশ্বরের বসবাস। মিলিত দুটি দেহ আবিষ্কার করে যেমন কলম্বাস। অন্তে শূন্য ঈশ্বরের সাথে মিলন।

      ReplyDelete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ