আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও বৃষ্টি ------------- মুনা চৌধুরী ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    বৃষ্টি ------------- মুনা চৌধুরী

     বৃষ্টি
    মুনা চৌধুরী 

    আমি বললাম
         : হও
         আমার ভেতর যা হতে চাও ।
    তুমি বললে
         : হবো
         তোমার ভেতর হবো
         ঘরবাড়ি, মানুষ আর ঝলমলে বাজপাখি ।

    তুমি হলে    অতলান্তিকে এক সাজানো সংসার
    তুমি হলে    নীলাম্বরী ভ্রূণ, আমাদের পুত্র
    তুমি হলে    প্রশান্তি, ভালোবাসা আর অনাবিল আনন্দ ।

    তুমি যখন হলে, চারিদিক জুড়ে বৃষ্টি
    তুমি যখন নিলে, চারিদিক জুড়ে বৃষ্টি
    তুমি যখন শেষ হলে, চারিদিক জুড়ে বৃষ্টি
    তুমি যখন চলে গেলে বৃষ্টি, বৃষ্টি আর বৃষ্টি ।

    স্তব্ধতা, পূর্ণ স্তব্ধতায় জেগে থাকি অনন্ত মধ্যাহ্ন রাতে-
    দেখি,
    এক ভীষণ সুন্দর অলীক শিশু
         ওর দুচোখ ভরা নোনাজল
    সেই নোনাজল পাঠ করে সাদাপাতা
         সাদাপাতা উড়ে যায় বাতাসে বাতাসে ....
    আসে নতুন বসন্ত বারবার
         নিস্তব্ধ সংগীত নিয়ে
         মরা সূর্যমুখী, বুনো হাওয়া, অশান্ত বাতাস নিয়ে

         এভাবে কত কাল,
                 কত যুগ
                    কত শতাব্দী ?

    5 comments:

    1. রেবতী সরকারMarch 1, 2020 at 8:03 PM

      মুনা চৌধুরী বৃষ্টি কবিতায় স্বপ্নের হাওয়ায় বলল "হও" সে বললো " হবো
      তোমার ভেতর হবো ঘরবাড়ি, মানুষ আর ঝলমলে বাজপাখি ।" এক ভীষণ সুন্দর অলীক শিশু যে মনের মাঝে বসত করে। খুব ভালো লাগলো এই স্বপ্নময় জগতের এই ভ্রূণ শিশুর কবিতা পড়ে.অনেক শুভকামনা।

      ReplyDelete
    2. শর্মিষ্ঠা ব্যানার্জিMarch 1, 2020 at 8:36 PM

      কবি সানজিদা রুমির "ভ্রূণ " ও মুনা চৌধুরীর " বৃষ্টি " কবিতা দুটোই না জন্মানো শিশুকে নিয়ে। একজন রূঢ় বাস্তব আরেকটি অলীক কাল্পনিক। কবি মুনা চৌধুরী তার কবিতা বৃষ্টিতে লিখেছেন " তুমি হলে অতলান্তিকে এক সাজানো সংসার তুমি হলে নীলাম্বরী ভ্রূণ, আমাদের পুত্র তুমি হলে প্রশান্তি, ভালোবাসা আর অনাবিল আনন্দ" হৃদয় আন্দোলিত করে। খুব ভালো। শুভেচ্ছা।

      ReplyDelete
    3. মিতা রহমানMarch 1, 2020 at 9:05 PM

      মুনা চৌধুরীর " বৃষ্টি " কবিতা পড়ে খুব ভালো লাগলো। কল্পনার ভেলায় ভেসে সত্যিকারের অতলান্তিক সংসার পাতা ছোট্ট শিশু হলো নীলাম্বরী ভ্রূণ,পুত্র আর প্রশান্তি, ভালোবাসা আর অনাবিল আনন্দ ।খুব সুন্দর। অনেক ভালো লাগা।

      ReplyDelete
    4. Scientists have spotted in an atom the electrons were disappearing from the top layer and reappearing in the bottom layer a fraction of a second later - with no trace of them existing in between.  সর্বত্র বিরাজমান চৈতন্যে আবির্ভাব আর তিরোধান, appearing and disappearing, এর অনন্ত অসীম আবহের যে "খেলা"  মুনা চৌধুরী তার সাথে একাত্ম !  Appearing এ "প্রশান্তি, ভালোবাসা আর অনাবিল আনন্দ" আর Disappearing এ "বৃষ্টি, বৃষ্টি আর বৃষ্টি।" সেইসাথে সারাটা চৈতন্য জুড়ে পরিপূর্ণ নিস্তব্ধতা!  - কি অসম্ভব রকমের ভালোলাগা একটা কবিতা ! যোগী মুনা চৌধুরীকে প্রণাম !

      ReplyDelete
      Replies
      1. আশরাফ আলী'র মন্তব্য পক্ষপাতিত্বের দোষে দুষ্ট। মুনা চৌধুরী ছাড়াও ভালো লেখক আছেন এবং তারাও ভালো লেখেন। আশা করি আশরাফ আলী এই ব্যপারে খেয়াল রাখবেন।

        Delete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ