আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও জেনে গেছি ! - সানজিদা রুমী ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    জেনে গেছি ! - সানজিদা রুমী


    জেনে গেছি !
    - সানজিদা রুমী


    যদি প্রশ্ন করি,
    আত্মাকে দেখেছো কখনো,
    দেখেছো ছুঁয়ে, অথবা অনুভবে ?
    যদি জানতে চাই,
    জীবন্ত হতে দেখেছো কখনো
    টলমল কোন শিশির বিন্দু?
    যদি হাহাকার মনটা আমার
    জানতে চায়,
    নদী কেন কাঁদে
    বৈঠার ছলাৎ ছলাৎ আঁচড়ে ?
    এক বৃষ্টিস্নাত সন্ধ্যারাতে
    যদি দুহাত তুলে আকাশের দিকে
    জানতে চাই,
    পূর্ণিমার চাঁদ ছুঁয়েছে কোনদিন
    মেঘের কোল ?
    যদি জন্মান্তরের তৃষ্ণা বুকে নিয়ে
    মাথা খুঁড়ে মরি, বলি,
    মিলন দেখেছো কখনো
    আত্মার সাথে আত্মার ?
    যদি বাতাসকে থেমে যেতে বলে
    ছুঁড়ে দেই প্রশ্নবাণ,
    শুনেছ কখনো নিঃশব্দতার শব্দ ?
    যদি সবশেষে জানায় আর্তি
    আমার চিরকালের এই আমি,
    মূর্তমান দেখেছো হতে
    দেয়ালে টানানো কোন ছবি?
    শোন বলি,
    আমি বৃষ্টি নয়, মেঘ হয়েছি
    মিশিয়ে বুকের সাথে বুক
    রয়ে গেছি অজানা
    বারে বারে জ্বলে জ্বলে
    তবুও রয়ে গেছে শরীর আমার
    সেই মৃত্তিকার দলা
    অথচ শতত প্রশ্নের মাঝে
    জেনে গেছি এইবারে
    শুধু একবার পোড়ে যদি
    আত্মা আমার
    হয়ে যাবে খাঁটি সোনা।

    সানজিদা রুমি কর্তৃক গ্রথিত http://www.alokrekha.com

    4 comments:

    1. শাশ্বতী দত্ত গুপ্তMarch 19, 2020 at 5:05 PM

      সানজিদা রুমীর জেনে গেছি !কবিতা পরে খুব ভালো লাগলো। অনন্য অনবদ্য।চমৎকার কিছু প্রশ্ন তিনি করেছেন এই কবিতায়। আত্মা আমাদের সব অনুভৱেৰে আকর। সেই আত্মাকে কি দেখতে পাই ? টলমল শিশির বিন্দু জীবন্ত হয়ে ঢোলে পরে আপন হাতে। ব্যাস্ততা ছাড়িয়ে এক সুসম্পূর্ণ, কবিতা। কবির মঙ্গল কামনা করি।

      ReplyDelete
    2. মিতা রহমানMarch 19, 2020 at 5:15 PM

      জেনে গেছি !কবিতা পড়ে খুব ভালো লাগলো। অনন্য অনবদ্য এক কথায় চমৎকার। সানজিদা রুমীর প্রশ্ন এই কবিতায় সাধারণ বিষয়বস্তু থেকে আলাদা--কবিতাটি আপন মহিমায় অনন্য। আমরা বুকের সাথে বুক মিশিয়ে এক জনম কাটিয়ে দেই তবুও রয়ে যায় অচেনা। অনেক শুভ কামনা। ভালো থাকবেন।

      ReplyDelete
    3. শফিক রায়হানMarch 19, 2020 at 5:42 PM

      জেনে গেছি !কবিতাটা পড়ে খুব ভালো লাগলো। চমৎকার বিষয়বস্তু। সানজিদা রুমীর কাছে আমাদের অনুরোধ আমাদের এই গৃহ বন্দি অবস্থায় ভালো ভালো চলচিত্র কোটিটা গান পোস্ট করে তবে কৃতজ্ঞ হবে। এই দুর্যোগে সুস্থ থাকুন নিরাপদে থাকুন এই কামনা করি।

      ReplyDelete
    4. নাহিদ রহমানMarch 19, 2020 at 6:42 PM

      সানজিদা রুমীর জেনে গেছি !কবিতাটা পড়ে খুব ভালো লাগলো। চমৎকার বিষয়। বিশেষ করে "বারে বারে জ্বলে জ্বলে
      তবুও রয়ে গেছে শরীর আমার
      সেই মৃত্তিকার দলা ।
      অথচ শতত প্রশ্নের মাঝে
      জেনে গেছি এইবারে
      শুধু একবার পোড়ে যদি
      আত্মা আমার
      হয়ে যাবে খাঁটি সোনা।" কথাগুলো এতো সত্য। অনেক শুভেচ্ছা কবি।

      ReplyDelete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ