আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও কিংবদন্তি শিল্পী শাহনাজ রহমতুল্লাহ ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    কিংবদন্তি শিল্পী শাহনাজ রহমতুল্লাহ



    অগণিত ভক্ত ও সুহৃদদের অশ্রুজলে ভাসিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন কিংবদন্তি শিল্পী শাহনাজ রহমতুল্লাহ। গত শনিবার রাত সাড়ে ১১টায় বারিধারায় নিজ বাসায় শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যায় মারা যান (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন) তিনি। তার বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর।
    শাহনাজ রহমতুল্লাহ (জন্ম: শাহনাজ বেগম, ২ জানুয়ারি ১৯৫২ - ২৩ মার্চ ২০১৯)[১] ছিলেন একজন প্রখ্যাত বাংলাদেশী সংগীত শিল্পী। তিনি দেশাত্মবোধক গান গেয়ে জনপ্রিয়তা অর্জন করেন।  তার উল্লেখযোগ্য গানসমূহের মধ্যে রয়েছে এক নদী রক্ত পেরিয়ে, একবার যেতে দে না আমার ছোট্ট সোনার গাঁয়ে, একতারা তুই দেশের কথা বলরে‌ এবার বল্, প্রথম বাংলাদেশ আমার শেষ বাংলাদেশ, আমায় যদি প্রশ্ন করে, যে ছিল দৃষ্টির সীমানায়।  প্রথমোক্ত তিনটি গান বিবিসির একটি জরিপে সর্বকালের সেরা বিশটি বাংলা গানের তালিকায় স্থান পায়।




    ১৯৯২ সালে তিনি একুশে পদক এবং ১৯৯০ সালে ছুটির ফাঁদে চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ নারী কণ্ঠশিল্পী হিসেবে বাংলাদেশ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন।
    শাহনাজ বেগম ১৯৫২ সালের ২ জানুয়ারি ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম এম ফজলুল হক ও মাতার নাম আসিয়া হক। শাহনাজের ভাই আনোয়ার পারভেজ সুরকার ও সঙ্গীত পরিচালক এবং আরেক ভাই জাফর ইকবাল ছিলেন চলচ্চিত্র অভিনেতা ও গায়ক। তিনি গান শিখেছেন গজল সম্রাট মেহেদী হাসানের কাছে।




    ১৯৬৩ সালে ১০ বছর বয়সে ‘নতুন সুর’ নামক চলচ্চিত্রে কণ্ঠ দেওয়ার মাধ্যমে তার কর্মজীবন শুরু হয়। ১৯৬৪ সালে প্রথম টেলিভিশনে তার গাওয়া গান প্রচারিত হয়। তিনি গাজী মাজহারুল আনোয়ার, আলাউদ্দিন আলী, খান আতা প্রমুখের সুরে গান গেয়েছেন। পাকিস্তানে থাকার সুবাদে করাচী টিভিসহ উর্দু ছবিতেও গান করেছেন।এই কিংবদন্তি গায়িকার  মৃত্যুতে  আলোকরেখার পক্ষ থেকে গভীর শোক জানাই ও তাঁর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করি। 


    সানজিদা রুমি কর্তৃক গ্রথিত http://www.alokrekha.com

    4 comments:

    1. শফিক রহমানMarch 23, 2020 at 4:55 PM

      আলোক রেখায় কিংবদন্তি শিল্পী শাহনাজ রহমতুল্লাহ সম্পর্কে লেখাকে সাধুনাদ জানাই। তাঁর মৃত্যুতে দেশের অনেক ক্ষতি হলো। তার বিদেহী আত্মার প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা।

      ReplyDelete
    2. মিতা রহমানMarch 23, 2020 at 5:22 PM

      তাঁর মৃত্যুতে দেশের অনেক ক্ষতি হলো।শিল্পী শাহনাজ রহমতুল্লাহর বিদেহী আত্মার প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা।

      ReplyDelete
    3. মেহতাব আহমেদMarch 23, 2020 at 5:31 PM

      আলোকরেখায় কিংবদন্তি শিল্পী শাহনাজ রহমতুল্লাহ সম্পর্কে লেখা পরে খুব খারাপ লাগলো । তাঁর মৃত্যুতে দেশের অনেক ক্ষতি হলো।শিল্পী শাহনাজ রহমতুল্লাহর বিদেহী আত্মার প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা।

      ReplyDelete
    4. আসিফ সিদ্দিকীMarch 23, 2020 at 5:55 PM

      অগণিত ভক্ত ও সুহৃদদের অশ্রুজলে ভাসিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন কিংবদন্তি শিল্পী শাহনাজ রহমতুল্লাহ।এই দুঃসময় আরো একটি মৃত্যু সংবাদ মনটা খারাপ লাগলো। তাঁর বিদেহী আত্মার প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা।

      ReplyDelete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ