আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও হিমাঙ্কের নিচে ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    হিমাঙ্কের নিচে





















    হিমাঙ্কের নিচে
    মেহরাব রহমান


    উত্তর আমেরিকার জনপদ ধরে
    পাগলা ঘোড়ার মতো ছুটে চলেছে
    বাঙালি এক কবি।
    সকল বৈপরীত্যের বিরুদ্ধে কবির বিরুদ্ধাচারিতা।

    শীতার্ত টরন্টো শহর, দুরন্ত শীতে জমে যাচ্ছে সব ; কাঁপছে
    প্রবল। যেনবা টাইফুনে পড়া ভয়ার্ত মানুষ। তাপমাত্রা
    ক্রমশ  নামতে নামতে হিমাঙ্কের নিচে।
    এই হিমরাতে সারিবদ্ধ দাঁড়িয়ে আছে
    গাছের জীবন্ত কঙ্কাল। একী বিস্ময়
    তবুও সবুজ পাতার সংসার নিয়ে সদর্পে
    জেগে আছে রাশি রাশি ক্রিসমাস ট্রি। ধীরে ধীরে
    জমে যাচ্ছে কঙ্কাল বৃক্ষদল,
    সুউচ্চ দালান, শহরের মাথার ওপর ছাতার
    মতন প্রকাণ্ড আকাশ।
    হিম থেকে হিম হয়ে জমে যাচ্ছে
    থেমে যাচ্ছে চলমান টরেন্টো শহর।
    তাপমাত্রা দ্রুত নামছে, বিয়োগ
    সেলসিয়াস ৩০ থেকে বিয়োগ সেলসিয়াস ৪০, এরপর
    ৫০-এর কোঠায়। জমে গেছে
    ভালোবাসা, উষ্ণ মিলনের তীব্র আশা, জমে গেছে
    যুবতী পূর্ণীমার রূপসী চাঁদ, জমে গেছে
    ক্রোধ, হিংসা, প্রতিশোধ
    যুদ্ধ এবং শান্তি।
    কেবল জেগে থাকা ক্ষুধা তৃষ্ণা নিয়ে এই মহামারি শীতে এক
    বাঙালি কবি ছুটে চলে, উডবাইন, মেইন স্ট্রিট এরপর
    ভিক্টোরিয়া ড্যানফোর্থের বাঙালিপাড়ায়। তন্দুরের গনগনে অবাধ্য আগুন
    দিগন্তে ছড়ায় শেষ-সূর্যের রক্তিম রং। সদ্য-সেঁকা তন্দুর রুটির সাথে
    ঝলসানো মাংসের স্বাদ কবির ভেতর
    একটু আগের অনুভূতিগুলো আস্তে আস্তে গলাতে গলাতে
    অফুরান জোয়ার।

    নমস্য সূর্যের কাছে কবির বিনম্র প্রার্থনা
    মধ্যগগনে তুমি জেগে ওঠো,
    তাপশক্তি সঞ্চারিত হোক দিকে দিকে ;
    গলে যাক হিম শীতে জমে-যাওয়া সবকিছু।
    কেবল হিমাঙ্কের নিচে যুগ-যুগান্তর থেকে যাক হিংসা, প্রতিশোধ
    ক্রোধ এবং যুদ্ধ।



     http://www.alokrekha.com

    2 comments:

    1. ঋতু মীরFebruary 24, 2018 at 7:21 PM

      "নমস্য সূর্যের কাছে কবির বিনম্র প্রার্থনা...
      গলে যাক হিম শীতে জমে-যাওয়া সবকিছু।
      কেবল হিমাঙ্কের নিচে যুগ-যুগান্তর থেকে যাক হিংসা,
      প্রতিশোধ, ক্রোধ এবং যুদ্ধ। " ---অসাধারন এই অভিব্যক্তি! হিমাঙ্কের নীচে যদি সব হিংসা, প্রতিশোধ, ক্রোধকে জমিয়ে দেয়া যেত তাহলে এই উর্বরা ফাগুণ হয়তো আরও সবুজ আরও পুস্পিত হয়ে যেত। নাগরিক সভ্যতায় মানুষ আজ ভান করা এক সুখে মাতাল। পাহাড়ের উচ্চতায়, বৃক্ষের মৌনতায়, মৃত্তিকার সহনশীলতায়, সাগরের বিশালতায় এই মানুষ আর কিছু শেখেনা। পাহাড় থেকে অনেক নীচে, খুব নীচে, অন্ধকারে আমি এবং আমরা- কুলীণ সব মানুষ! ধন্যবাদ কবি মেহরাব রহমান বিষয়ের গভীরে এভাবে নিয়ে যাওয়ার জন্য!

      ReplyDelete
    2. সুপ্রিয় ঋতু মীর আপনার ভালোলাগা
      আমার উৎসাহ

      ReplyDelete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ