আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও এক বাউলের ভিন ধারাপাত মেহরাব রহমান ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    এক বাউলের ভিন ধারাপাত মেহরাব রহমান












    এক বাউলের ভিন ধারাপাত
    মেহরাব রহমান  

    কবুল কবুল বোইলেছো কইন্যা
    দেন মোহর দেই নাই
    মাইনা লইছো এই বান্দার শত অনাচার
    মাইনা লইছো বাউলের কত অইত্যাচার    
    এই উড়াকু সংসার
    আমারে বান্ধে বারবার
    জানি আমি ছাইড়তে হবে এই অবাক জীবন 
    ডাক পোইড়লে যাইতে হবে অইন্য এক ভূবন 
    যে থাইকবার সে ক্যান হারায় সকাল সকাল
    যার যাইবার সে থাইক্কা যায় য্যান চিরকাল
    কবুল কবুল বোইলেছো কইন্যা
    দেন মোহর দেই নাই


    বহুত দুঃখ দিছি কইন্যা তোমারে আমি
    কতযে দিয়াছি যন্ত্রনা জানে অন্তর্যামী  
    পিরিতি পিরিতি কইরা বান্ধিয়াছি ঘর
    এতো কষ্ট লইয়া তুমি করো নাই পর
    কবুল কবুল বোইলেছো কইন্যা
    দেন মোহর দেই নাই  

    কইন্যা তোমার বুদ্ধি য্যান সোনার মোহর
    পদ্মার যৈবতি ঢেউয়ে
    কী দারুন চমকায় অষ্টপ্রহর   
    চাঁদনী রাইতে উজানে ভাসে আলোর বইন্না
    ধইন্নো ধইন্নো সোনামুখ বধূ রাজকইন্না
    আমার মতন বেভুল বাউলেরে 
    বুকে লোইছো টাইন্না 
    কবুল কবুল বোইলেছো কইন্যা
    দেন মোহর দেই নাই

    কইন্না মোটরযান চালাও য্যান সুদূর সাম্পান
    হাল ধইরা বইসা থাক আমার বিবিজান
    নগরে বন্দরে ঘুরি দুই মহাজন  
    নাও ছাইড়া যাও তুমি
    পাল উড়াইয়া যাও 
    পাশে বইসা আমি য্যান আউলিয়া ফকির
    আল্লাহ়্ আল্লাহু বইল্লা ধরি নানান সুর 
    কবুল কবুল বোইলেছো কইন্যা
    দেন মোহর দেই নাই
    নুতন বৌ ছিলে যখন সুন্দরী তখন
    রশইঘর যাইতে দেই নাই যখন তখন   
    সোনারঙ যদি যায় অঙ্গারে পুড়িয়া
    ভয় হইতো মনে মনে থাকিয়া থাকিয়া
    পাখির পালকের লাহান শরীল ছিল হায় 
    ভয় হইতো বাতাসে না উইড়া চইলা যায়
    সময়ে ভালোমন্দ সবকিছু বদলায়
    আদমও বদলাইছে যেমন হওয়ার হাওয়ায়
    ভিতরে বাহিরে কইন্না তুমিও যেমন
    আমিও বদলাইছি বহুত তোমারি মতন  
    লাইলী মজনুর প্রেমদরিয়ায় ভাসি দুই-জনা  
    কবুল কবুল বোইলেছো কইন্যা
    দেন মোহর দেই নাই  

    বাহুরও বন্ধনে তারে বন্ধনী পরাইছি
    ভেলুয়া সুন্দরীরে লইয়া নাও হারাইছি
    অসীম দরিয়ায় ভাসাইয়াছি ভেলা
    কে জানে কে জানে 
    কোথায় থামিবে এই অচেতন খেলা
    দেওয়ানা এই পাগল জানে
    জানে আমার জান-বন্ধু সে
    অদৃশ্য আন্ধারে থাকে যে
    অসীম আলোকে থাকে সেই লোক
    তারে পাইলে ভুইলা যাই দ্যুলোক ভূলোক
    হারায় হারায় বলি কিছু-না হারায়
    কবুল কবুল বোইলেছো কইন্যা
    দেন মোহর দেই নাই

    শোনেন শোনেন মহাজনা শোনেন দিয়া মন
    সকলেরে শোনাই আমি বন্দনারো গান
    উত্তরে বন্দনা করি
    দক্ষিণে বন্দনা
    পূবেতে বন্দনা করি
    পশ্চীমে বন্দনা
    অন্তরে বন্দনা করি
    বাহিরে বন্দনা  
    তোমারে বন্দনা করি
    ওগো দিল-পরান
    এক বাউলের ভিন ধারাপাত করিয়া বর্ণন
    কবিতায় বলিতেছি জীবনো গাঁথন
    চান্দেরইরোশনাই ঢাইলা আইলা আমার ঘরে
    কবুল কবুল বোইলেছো কইন্যা
    দেন মোহর দেই নাই 

    বলিব কথক আমি শেষ কথাখান   
    শোনো শোনো মহারানী আমার দিল-পরান 
    তোমারে দিয়াছি আমি অমৃত সমান 
    সবে ধন নীলমনি আমার হৃদয়খান
    রঙ্গিলা সাম্পানে আমি তুইলেছি তোমারে
    ছাইড়োনা ছাইড়োনা কইন্যা কখনও আমারে  
    যদি পড়ি তুফান ঝড়ে
    সঙ্গে লইয়া ভাইসা বেড়াই অদক্ষ এক মাঝি
    মুখ ফুইটা বলো কইন্যা তুমি আছ রাজি     
    আমরা দুইজনা যাইবো দূর বহু দূর
    অন্তহীন চঞ্চলা ওই সময় প্রপাত
    এইখানেই শেষ কৈরলাম
    এক বাউলের ভিন ধারাপাত

     http://www.alokrekha.com

    20 comments:

    1. মিতা রহমানAugust 19, 2019 at 2:52 PM

      দাম্পত্য জীবনের আসল ছবিটা তুলে ধেরেছেন কবি মেহরাব রহমান তার কবিতায়। কবুল বলেছে কন্যা কিন্তু দেনমোহর দেওয়া হয়নি। এই দুটি লাইনে পুরো কবিতাটির নির্যাস। খুব ভালো লাগলো ভিন্নধর্মী একটা কবিতা পড়ে। অভিনন্দন।

      ReplyDelete
      Replies
      1. সুহৃদ মিতা রহমান
        অনেক কৃতজ্ঞতা
        পাঠকের ভালোলাগা আমাকে উজ্জীবিত করে

        Delete
    2. মোহন সিরাজীAugust 19, 2019 at 10:45 PM

      এক বাউলের ভিন ধারাপাত " এক ভিন্ন ধারায় কবিতা। কবি মেহরাব রহমান এই কবিতার মাধ্যমে এক ধরণের স্বীকারোক্তি করেছেন। যে কন্যা কবুল বলেছে সে তার সর্বত্র দিয়ে বাউলের জীবন ধরে রেখেছে বাস্তবতায়। খুব ভালো লাগলো এই ভিন্ন ধরণের কবিতা পড়ে। অনেক ভালোবাসা কবি .

      ReplyDelete
      Replies
      1. সুপ্রিয় মোহন সিরাজী আপনার ভাললেগেছে যেন আমি সুখী বোধ করছি
        ধন্যবাদ

        Delete
    3. নাদিম ইকবালAugust 19, 2019 at 10:49 PM

      "এক বাউলের ভিন ধারাপাত " এক ভিন্ন মাত্রার কবিতা। এক বাউলের নিজের কথা। বাউলের ছন্নছাড়া জীবনকে তার জীবন সাথী "কইন্যা " তাকে জীবন বোধ শিখিয়েছে শত কষ্ট সহ্য করেও ভালোবাসায় ভরিয়ে রাখে। খুব সুন্দর কবিতা। বড্ডো ভালো লাগলো। ভালো বাসা কবি।

      ReplyDelete
      Replies
      1. সুপ্রিয় নাদিম ইকবাল
        আমি কবিতা নিয়ে নিরীক্ষা করি
        জানি আমি এরকম কবিতা কবিতা হিসাবে সফলতা নাও পেতে পারে
        তবু লিখি
        আপনার মতো বোদ্ধা পাঠকের ভালোলাগা মানে অনেক পাওয়া
        কৃতজ্ঞতা; ভালো থাকবেন

        Delete
    4. জামিলা হাসানAugust 20, 2019 at 1:10 PM

      কবি মেহরাব রহমান "এক বাউলের ভিন ধারাপাত " কবিতায় এক ভিন্ন ধারা যোগ করেছেন। গ্রাম্য ভাষায় কি অপূৰ্ব জীবনের চিত্র অঙ্কন করেছেন। খুব ভালো লাগলো কবি।

      ReplyDelete
      Replies
      1. আমার বিনম্র কৃতজ্ঞতা ও অনেক ভালোবাসা

        Delete
    5. অমিয় সেনAugust 20, 2019 at 1:13 PM

      • কবি মেহরাব রহমান "এক বাউলের ভিন ধারাপাত " কবিতায় কইন্যার যে চিত্র অংকিত করেছেন তা প্রশংসার দাবিদার। তার বুদ্ধি যেন সোনার মোহর অপরূপ রূপবতী যেন চাঁদের আলো ,সোনামুখ যেন রাজকন্যা। কি দারুন সব উপমা ব্যবহার করেছেন কবি এই কবিতায়।

      ReplyDelete
      Replies
      1. অনেক কৃতজ্ঞতা
        অনেক শুভ কামনা

        Delete
    6. বেবী ওসমানAugust 20, 2019 at 1:18 PM

      কবি মেহরাব রহমান "এক বাউলের ভিন ধারাপাত " কবিতায় কবির হৃদয় নিংড়ানো অনুভূতির কি গভীর প্রকাশ।গহীন জগতে কখনো শান্ত যদি আবার কখনো জোয়ার ভাটায় আবার খরস্রোতা নদী।কবির ভালোবাসার চেতনার অভিব্যক্তি এই কবিতা। নিদারুন একটা কবিতা। অনেক শুভেচ্ছা কবি

      ReplyDelete
      Replies
      1. কৃতজ্ঞতা , শ্রদ্ধা ও অনেক কৃতজ্ঞতা

        Delete
    7. রাহিম কাদরীAugust 20, 2019 at 1:26 PM

      কবি মেহরাব রহমান "এক বাউলের ভিন ধারাপাত " আমরা অপেক্ষায় থাকি কবি মেহরাব রহমানের কবিতার জন্য। "এক বাউলের ভিন ধারাপাত " মনটা ভরিয়ে দিল। দারুন অনুভূতি কবিতা বার বার পড়তে ইচ্ছে করে। ! আলোকরেখাকে ও কবি মেহরাবকে অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা ।

      ReplyDelete
      Replies
      1. ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা
        আপনাদের অপেক্ষাকে আমি পূরণ করার আপ্রাণ চেষ্টা করবো

        Delete
    8. প্রদীপ কুমার সেনAugust 20, 2019 at 1:29 PM

      কবি মেহরাব রহমান "এক বাউলের ভিন ধারাপাত " উত্কৃষ্ট চমৎকার জীবন বোধের প্রকাশ।অপূর্ব বিষয় বস্তু,ভাষাভাব ও শব্দচয়ন ও রচনা শৈলী মিলিয়ে অনবদ্য ও অনিন্দ্য এক কবিতা। আমরা অপেক্ষায় থাকি কবি মেহরাব রহমান কবিতার জন্য। মনটা ভরিয়ে দিল। দারুন অনুভূতি কবিতা বার বার পড়তে ইচ্ছে করে। ! আলোকরেখাকে ও কবিকে অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা

      ReplyDelete
    9. জ্বি দাদা আপনাদের ভালো লাগলে আমি অনেক উৎসাহ বোধ করি

      ReplyDelete
    10. মেঘনা গুহAugust 20, 2019 at 6:06 PM

      কবি মেহরাব রহমান "এক বাউলের ভিন ধারাপাত " কবিতায় শুধু রূপের বনর্ণা করেন নাই এক বাউলের আউলা জীবনকে বেঁধেছে সাংসারিক জীবনে। এই কবিতার মুখ্য বিষয়বস্তুই তাই। খুব ভালো লাগলো কবিতাটা পড়ে। অনেক অনেক শুভেচ্ছা কবি। আলোকরেখাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ এমন একটা কবিতা পড়ার সুযোগ করে দেবার জন্য।

      ReplyDelete
      Replies
      1. সুপ্রিয় মেঘনা গুহ
        আমার কবিতা পড়ার এবং সুন্দর মন্তব্যের জন্য বিনম্র কৃতজ্ঞতা

        Delete
    11. মোহন সিরাজীAugust 21, 2019 at 3:23 PM

      আলোকরেখার লেখক কবিদের অনেক অনেক ধন্যবাদ। তাঁরা আমরা যারা মন্তব্য করি তাদের মন্তব্যের উত্তর দেন। এতে আমাদের উৎসাহ দ্বিগুন হয়ে যায়। হয় তাঁদের সাথে কথোপথন হচ্ছে। অনেক অনেক শুভকানা আর ভালোবাসা।

      ReplyDelete
    12. ভানু দাশAugust 21, 2019 at 9:34 PM

      আলোকরেখাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।আবার নুতুন করে শুরু করার জন্য। আমরাতো হতাশ হয়ে গেছিলাম। নতুন লেখা পেয়ে আমাদের উৎসাহ দ্বিগুন হয়ে গেছে । অনেক অনেক শুভকানা আর ভালোবাসা।

      ReplyDelete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ