আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও শেষ শ্রাবনের শেষ বিকেলে --------মেহরাব রহমান ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    শেষ শ্রাবনের শেষ বিকেলে --------মেহরাব রহমান


    শেষ শ্রাবনের
    শেষ বিকেলে 

    মেহরাব রহমান

    কাব্যগ্রন্থ : শেষ শ্রাবনের শেষ বিকেলে

    শেষ শ্রাবনের শেষ  বিকেলে
    মুষলধারে বৃষ্টি নামলো I
    সমস্ত পৃথিবী জুড়ে বৃষ্টি,
    বৃষ্টির এপারে আমি  আর ওপারে তুমি I তোমাকে দেখছি অথচ
     ছুঁতে পারছিনা তোমার আকাশ  I
    পারমিতা তুমি কত দূরে ?    
    সারাটা সকাল
    তোমাকে দেখার  অপেক্ষাটা 
    কী ধীর লয়ে চললো
    ঘড়ির কাঁটাটা কিযে বেয়াড়া
    কিছুতেই দ্রুত চলতে চায় না,
    ইচ্ছে হয় কাঁটাটা ঘোরাই নিজ হাতে I মোবাইলের বোতাম
    টিপতে টিপতে হাত নিঃসাড়,
    ফোনটা খুব উদ্ধত
    কথা শুনতে চায়না একেবারে I

    পারমিতা, এই শ্রাবণ ধারায়
    তোমার অভিসার,
    আমার শত্রুসখা
    চির শত্রু আমার,
    বলতো কেন তোমার অভিসারের এই দশা ?
    আমি তাই এই অবেলায়,
    বৃষ্টি ধারায় ভিজতে ভিজতে 
    হাঁটি যোজন-যোজন মাইল
    পা'টাও আজ আর  চলতে চায়না
    তুমি নেই কোথাও এই চরাচরে,
    মনে হয় পৃথিবীর দিন রাত্রি থেমে আছে I  

    অবসন্ন আমি বসে পড়ি
    কংক্রিট  ছাউনিতে
    তখনই দেখি বিজলি ঘোড়ায় চড়ে
    চাঁদ নেমে এলো
    এপারে আকাশ ওপারে চাঁদ
    এপারে আমি ওপার বৃষ্টিতে তুমি I
    আমার অভিমানী চোখ তোমাকে
    দেখেও দেখেনা, না দেখার ভান করে ভেজাতে চাইলাম তোমাকে l
    এই শেষ শ্রাবণের শেষ বিকেলে
    তোমার অভিসার l
    পারমিতা, বন্ধু আমার,
    ঝিরঝির বৃষ্টির  আদরের মাখামাখি করে ধীর লয়ে ছুটে আসছো তুমি
    বৃষ্টির ওপার থেকে, আর এপার থেকে আমি ছুটে যাই তোমার দিকে
    বৃষ্টি জলে ভিজে I
    তুমি আমি আজ ভিজে একাকার
    এই শেষ শ্রাবণের শেষ বিকেলে l


     http://www.alokrekha.com

    2 comments:

    1. মিতা রহমানMarch 30, 2020 at 4:35 PM

      শেষ শ্রাবনের শেষ বিকেলে কবিতায় মেহরাব রহমান শ্রাবনের শেষ বিকেলে যে মুষলধারে বৃষ্টি নাম তা তুলে ধরেছেন অপরূপভাবে। খুব ভালো লাগলো পড়ে। ভালো থাকবেন কবি ,

      ReplyDelete
    2. শফিক রায়হানMarch 30, 2020 at 4:52 PM

      মেহরাব রহমানের শেষ শ্রাবনের শেষ বিকেলে কবিতা পড়ে ভালো লাগলো। শেষ শ্রাবনের শেষ বিকেলে মুষলধারে বৃষ্টি নামলো Iকবি এখানে তুলে ধরেছেন। সমস্ত পৃথিবী জুড়ে যখন বৃষ্টি,বৃষ্টির এপারে আমি আর ওপারে তুমি I তোমাকে দেখছি অথচ ছুঁতে পারছিনা তোমার আকাশ I অনেক শুভেচ্ছা। ভালো থাকবেন।

      ReplyDelete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ