আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও ভাষা-- আনিনা তাহিন নেভিলা ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    ভাষা-- আনিনা তাহিন নেভিলা


    --ভাষা-

    আনিনা তাহিন নেভিলা

    ব্যবধান- তোমার মধ্যবর্তী হাওয়ায় ঘুরছে
    বহুমাত্রিক বজ্রবুলি, চৈতন্যপূর্ব ভাষার তত্ত্ববাণী
    অহেতুক শব্দের শীতাতপ নিশ্বাসে হাসে--
    চুড় হয়ে গলে-- জলগত দীর্ঘ অকথা- নিরবতা।
    যেমন-- খুন হয় বহুবার লাশকাটা ঘরে-
    অথচ, অযুত নিযুত পদাবলী বাঁচেনি শব্দের বাহারে।
    যাদেরকে পাশ কেটে উঠে যায়- ছায়ার মিছিল,
    শহরের ক্লান্ত দেয়াল, অথবা দেয়ালের বুকে ঝুলন্ত ডাক-
    ঘর ভাড়া হইবে, ক্যান্সারের দুর্লভ ওষুধের বিজ্ঞাপনে,
    পতিত কাঠামো -- সহজ শব্দের ভাঙ্গাচোরা বানানে।
    ভাষাভেদ ভুলে উড়ন্ত চেতনায় জাগে অনুবাদ-
    কখনো সহজ ছিলো না যা-- তাকেও মুঠোয় টেনে আনে।

    কখনোবা শিশুদের পিঠের বোঝা থেকে খসে পড়া
    পূর্ণ ছড়ার লাইন, অবাধ তরঙ্গ হয়ে ভেসে যায়-
    এ পৃথিবীর অদ্ভুত সরাইখানায়। শক্ত গাঁথুনি দাও--
    যদিও দুরত্বে বাড়ে সীমানা, কথা তো বাড়ে না!
    সময়ের ব্যস্ততম ধাঁধাঁয় হঠাৎ আলতো করে,
    দু’একটা শুনশান অক্ষর ঢুকে গেলে--
    কোডিং এর আদিখ্যেতায়, অথবা--যতি চিহ্ন রূপে,
    গোপন মর্মকথা ঢেউ তোলে-- কুয়াশার ভাপে।
    এইসব সংকেত তুলে রেখে-- কেউ কি দেখে খুলে বুক!
    ক’খানি অর্থবহ পথ পেতে আছে- নদীর মতো চোখ--
    ক’খানা প্রাচীর পেড়িয়ে অপেক্ষায় বিদগ্ধ-- প্রাচীন শ্লোক।
    কড়া নাড়ে আরক্তমুখ --সেই একই ব্যবধানে।
    যতকাল কঠিন ছিলো ভাষা- হয়ত সহজ ছিলো মানে।
    --- ০৬/২৯/১৭.

    --- মধ্যাহ্ন.

     http://www.alokrekha.com

    11 comments:

    1. মাহবুব সালেহীনJuly 11, 2017 at 4:00 PM

      অনেক দিন পর আনিনা তাহিন নেভিলা-ভাষা--কবিতা পেয়ে খুব আনন্দিত হলাম। ভাষা নিয়ে এই যে দন্দ চলছে।এই সময়ে কবি আনিনা তাহিন নেভিলা-ভাষা--কবিতাখানি অত্যান্ত সময় উপযোগী ওঃ বিশেষ তাৎপর্যময়!শুভেচ্ছা রইল!

      ReplyDelete
      Replies
      1. প্রিয় মাহবুব সালেহীন, আপনাকে ধন্যবাদ আমার শব্দ চয়নকে ভালোবাসার জন্য। ধন্যবাদ অনেক অনেক...

        Delete
    2. সমিরন চট্টোপাধ্যায়July 11, 2017 at 6:41 PM

      আমার খুব জানতে ইচ্ছে করে কবি আনিনা তাহিন নেভিলা-ভাষা কেমন করে একটা সহজ ভাষাকে নিয়ে এমন উৎকর্ষ নান্দনিক কবিতা লেখেন ? আজ ভাষাকে ব্যবচ্ছেদ করা হচ্ছে যেমনটি করা হয় লাশ কাটা ঘরে । কিন্তু সে তো লাশ মৃত তবে কি আমাদের ভাষাও আর জীবিত নেই ? আমি কবির লেখা যতই প্রশংসা করি না কেন তা যথেষ্ট নয়। শুধু বলব আনিনা তাহিন নেভিলা আমার খুব প্রিয় কবি আর তার লেখা উচ্চ মার্গের। অনেক অনেক ভালবাসা কবি।

      ReplyDelete
      Replies
      1. প্রিয় সমিরণ চট্টোপাধ্যায়, আমি অতি নগণ্য মানুষ। তবে হ্যাঁ, ভাষাকে নিয়ে এইযে টানা হ্যাঁচড়া শুরু হয়েছে, তাতে করে এক সময় ভালো কিছু রচণা করা অসম্ভব হয়ে যাবে। আপনার ভালোবাসা জারি রাখবেন...ভালবাসায়। আমার কৃতজ্ঞতা জানবেন।

        Delete
      2. সমিরণ চট্টোপাধ্যায়,July 13, 2017 at 2:18 PM

        আমি আবেগ আপ্লূত!আপনার মত কবি আমাকে উদ্দেশ্য করে উত্তর দেবেন আমি স্বপ্নেও ভাবতেও পারি নি। অনেক অনেক ধন্যবাদ !!

        Delete
    3. তমা কর্মকারJuly 11, 2017 at 7:16 PM

      আনিনা তাহিন নেভিলা প্রকৃষ্ট নান্দনিক কবিতার কবি । আজ ভাষাকে ব্যবচ্ছেদ করা হচ্ছে বটেই তবে জীবিত ভাষাকে। আমরা ব্যবচ্ছেদ করি শেখার জানার জন্য । আজ ব্যবচ্ছেদ ব্যবসায়িক বা নিগমবদ্ধ ফায়দায়। আর এই মুনাফার চাপে বিধস্ত ভাষা। --ভাষা--কবিতায় আনিনা তাহিন নেভিলা এক অনন্য রূপ তুলে ধরেছেন গতানুগতিক নয় বরং ব্যঙ্গময় ছন্দে। বরাবরই উন্নত, সমুচ্চ, ঐশ্বর্যময় ও যথাযথ তার লেখার ধারা। আমি কবির লেখার প্রশংসা করার যোগ্যতা রাখি না । অনেক ভালবাসা কবি ।

      ReplyDelete
      Replies
      1. প্রিয় তমা কর্মকার, আপনার সাথে আমি একমত! ভাষা বিধস্থ! আর আমার লেখা তেমন বিশেষ কিছুই নয়। এখনো অনেক কিছু জানার ও শেখার আছে আমার। হয়ত, ভাষাকেই আজ অব্দি জানতে পারছিনা। তবে জানার চেষ্টায় আছি... ভালো থাকবেন খুব বেশী।

        Delete
    4. অমিয় সেনJuly 11, 2017 at 7:26 PM

      "বজ্রবুলি, চৈতন্যপূর্ব ভাষার তত্ত্ববাণী অহেতুক শব্দের শীতাতপ নিশ্বাসে হাসে--প্রাচীন শ্লোক কড়া নাড়ে আরক্তমুখ" দারুন আবেগময় লেখা। এ কথা কবিতায় শুধু কবি আনিনা তাহিন নেভিলালিখতে পারেন। আমারা তার একনিষ্ঠ ভক্ত পাঠক ! এই ভক্ত পাঠকদের নিয়ে লিখতে বিশেষ অনুরোধ জানাচ্ছি। আশা করি পাবো। অনেক ভালবাসা !

      ReplyDelete
      Replies
      1. সুপ্রিয় অমিয় সেন, দেখুন আপনার কথা অনুযায়ী আজ ঠিকই একে একে সকলের মন্তব্যের জবাব লিখতে বসে গেছি! তবে, আশা আছে একটা ভালো কিছু লেখার শুধুই আমার পাঠকদের জন্য। আজ আলোকরেখা আমাকে এই যে আপনাদের ভালবাসার যোগ্য করে তুলেছে, আমারো তো একটা টান তৈরি হয়! অনেক অনেক ভালবাসা জানবেন।

        Delete
    5. আরিফ হাসানJuly 11, 2017 at 10:29 PM

      আনিনা তাহিন নেভিলা অনেক উচ্চমানের কবি।কবি আপনার আমি একজন আবৃতি শিল্পী ও আপনার একজন অন্ধ ভক্ত। আলকরেখায় যত কবিতা প্রকাশ হয়েছে আমি কোনটাই বাদ দেই নি। আমি তীর্থের কাকের মর বসে থাকি কবে আপনার একটা কবিতা পাবো । দয়া করে জানাবেন আপনার কবিতার কোন বই পেতে পারি ?

      ReplyDelete
      Replies
      1. সুপ্রিয় আরিফ হাসান, আমি এক অতি সাধারণ মানুষ। তারচাইতেও বড় কথা হচ্ছে যে, আমি ভীষণ অনিয়মিতভাবে লেখি। কেউ আমার লেখার জন্য অপেক্ষায় থাকে এটা ভাবতেই এখন একটা দায়িত্ব কাঁধে এসে বসে গেলো যে! হাহাহা...আপনার আবৃত্তি শোনার অপেক্ষায় রইলাম। ভালো থাকুন ভালোবাসায়...

        Delete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ