আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও অরুদ্ধ। - সুনিকেত চৌধুরী ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    অরুদ্ধ। - সুনিকেত চৌধুরী

     অরুদ্ধ।
    - সুনিকেত চৌধুরী রুদ্র ভৈরবীর উত্তপ্ত নামাবলী গায়ে চাপিয়ে চলন্তিকা রায় ঘোষণা দিলেন দীঘার সৈকতে ভ্রমণে যাবার। ব্রতচারী ব্রজমোহন অগত্যা কালক্ষেপন না করে সহায়-সম্পত্তি বিকিয়ে যাত্রার টিকেট কেটে আনলেন কালীধাম থেকে। কামনা-বাসনা যত তারচেয়ে শতগুন বেশী পরম্পরায় সহস্র যোজন দূরবর্তী ঠিকানার হদিস পাওয়ার আনন্দের মতো মৃদুমন্দ বাতাসে হিন্দোলিত বৃক্ষরাজি মেতে উঠলো বৈশাখী পর্বণের উৎসবে।
    মামুলী মাসোহারায় রাজী হয়ে ভ্রমণসঙ্গী হতে সদাশয় সুহৃদেরা এলো বৃন্দাবন থেকে, আর বৃষ্টির বরাদ্দ পাওয়া গেল অযাচিতভাবে। গোলাপেরা প্রস্ফুটিত হবার প্রতিশ্রুতি পাঠালো তড়িঘড়ি তমাল বনে তন্দ্রাচ্ছন্ন তরুলতারা জোট বাঁধলো উপাসনালয়ে যাবে বলে। কণ্ঠে কণ্ঠ মিলিয়ে কলকলিয়ে প্রবাহিত হলো নদী ! বজ্র নিনাদে নির্ভরতার সকল শৃঙ্খল ছিন্ন করে প্রমিত পরাগ প্রজননে প্রমত্ত হোলো। সেইথেকে আজ অবধি অবন্তীরা অবলীলায় চুমু দিয়ে ঘুম পাড়ায় রংধনু রং মনপুরাবাসীদের, আর প্রধান সড়কের সবগুলি লেন সবার জন্যে উন্মুক্ত !

     http://www.alokrekha.com

    5 comments:

    1. শফিক রায়হানJanuary 20, 2020 at 3:52 PM

      শব্দের খেলায় আর অভিনব মাত্রার এক অনন্য লেখা কবিতা। কবির চলন্তিকা রায়ের ঘোষণায় ত্রস্ত ব্যস্ত সবাই। এমন কি ব্রতচারী ব্রজমোহন কালক্ষেপন না করে সহায়-সম্পত্তি বিকিয়ে যাত্রার টিকেট কেটে আনলেন কালীধাম থেকে। ভাবের আদানও অনন্য। পড়তে খুব ভালো লাগলো।

      ReplyDelete
    2. মিতা রহমানJanuary 20, 2020 at 4:46 PM

      অরুদ্ধ কবিতায় আমরা সুনিকেত চৌধুরী'র অন্য এক রূপ দেখতে পেলাম। প্রেমের মিষ্টি মিষ্টি শব্দ মালায় গ্রথিত কবিতা। রুদ্র ভৈরবীর উত্তপ্ত নামাবলী গায়ে চাপিয়ে চলন্তিকা রায়কে কেন্দ্র করে যে চিত্র তিনি এঁকেছেন তা অনবদ্য। খুব ভালো লাগলো।

      ReplyDelete
    3. শর্মিষ্ঠাJanuary 20, 2020 at 4:55 PM

      অরুদ্ধ কবিতায় আমাদের সুনিকেত চৌধুরী প্রেমের কবিকে ভিন্ন রূপে দেখতে পাই। কবিতাটা পড়তে খুব ভালো লাগলো। অবশ্য তার সব কবিতায় ভালো লাগে। অনেক শুভ কামনা।

      ReplyDelete
    4. জয়দেব সাহাJanuary 20, 2020 at 5:23 PM

      আমার প্রিয় কবি সুনিকেত চৌধুরী অরুদ্ধ কবিতায় মিলনের যে আধ্যাত্মিক রূপ ফুটিয়ে তুলেছেন তা অনবদ্য। এ এক অন্য মাত্রার কবিতা। এই কবিতা পড়তে পড়তে আমি অন্য এক জগতে চলে গিয়েচিলাম। অনেক অনেক ভালো লাগলো। অনেক অনেক ভালোবাসা কবি।

      ReplyDelete
    5. অনিরুদ্ধ সেনJanuary 20, 2020 at 5:46 PM

      আমার প্রিয় কবি সুনিকেত চৌধুরী অরুদ্ধ কবিতায় প্রেমের যে অধ্যাত্মবাদের রূপ ফুটিয়ে তুলেছেন তা অনন্য। অনেক অনেক ভালো লাগলো। অনেক অনেক ভালোবাসা কবি।

      ReplyDelete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ