আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও ঠিকানা ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    ঠিকানা

     ঠিকানা
    সুনিকেত চৌধুরী
      
    এক নিরবিচ্ছিন্ন একাকিত্ব যে ঠিকানা আমার

    বলে দিলো ইউটিউবের ভিডিওটা !

    কোন এক বিজ্ঞানীর কাজ

    সুনিপুণ এক গ্রাফিক ডিজাইনারের সাথে

    দুইজনে মিলে গিয়েছিলো সেই দেশে

    যে দেশে যায়নি কেউ এযাবৎ !

    গহীন অরণ্য তো নয় সেতো আমারি ঠিকানা

    আমারি শুরু কিংবা শেষ !

    বন্ধ নিঃস্বাসে অবলোকন যখন

    ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র অনুর পরিমিত পারিপাশ

    দাঁড়িয়ে সেখানে আমি দেখি চারিপাশ - কেউ নেই,

    আছি শুধু আমি ! সেইখানে নেই কোন আলো

    কিংবা কালো কিছু !

    উপলদ্ধিও তো নেই !

    আছে শুধু একটা কাল,

    আর সেটা যেন চিরটাকাল!


    6 comments:

    1. রেহানা সুলতানাJanuary 29, 2018 at 3:55 PM

      বরাবর-ই কবির কবিতা মন ও মননের সুগভীর অনুচিন্তন,ভাব, অভিব্যক্তির ছায়া দেখতে পাই । অপূর্ব শব্দশৈলী চমৎকার। অপরূপ-বহুবর্ণ ও ভাষার প্রকাশ। উত্কৃষ্ট ও চমৎকার সৃষ্ট কবিতা । অনেক ভালোবাসা কবি।

      ReplyDelete
    2. সবিতা রায়January 29, 2018 at 4:16 PM

      কবি- সুনিকেত চৌধুরীর "ঠিকানা " আপনার অন্য কবিতার মত আরেকটি অনবদ্য কবিতা । বরাবরের মতই প্রচণ্ড দৃড়তার প্রত্যাশিত আকাঙ্খায় কবি নিজেকে প্রকাশ করেছেন। কবি সুনিকেত চৌধুরীর কবিতা "ঠিকানা " দারুন ও চমৎকার সৃষ্ট কবিতা।

      ReplyDelete
    3. মৃন্ময়ীJanuary 29, 2018 at 4:29 PM

      এত ভালো লাগলো কবিতাটা পড়ে। আমি কবি সুনিকেতের অনেক বড় ভক্ত। তার এক একটা কবিতা বার বার পড়ি। অনেক ভালো থাকবেন কবি ! লিখবেন আর আমাদের আরো অনেক অনেক ভালো কবিতা পাই।অনেক ধন্যবাদ শুভেচ্ছা ও ভালবাসা আলোকরেখাকে !!

      ReplyDelete
    4. মাহফুজা শেলীJanuary 29, 2018 at 10:50 PM

      কবি সুনিকেত আমাদের প্রিয় কবি। কবি সুনিকেত চৌধুরীর "ঠিকানা" কবিতা উত্কৃষ্ট চমৎকার জীবন বোধের প্রকাশ।অপূর্ব বিষয় বস্তু,ভাষাভাব ও শব্দচয়ন ও রচনা শৈলী মিলিয়ে অনবদ্য ও অনিন্দ্য এক কবিতা। আমরা অপেক্ষায় থাকি কবি সুনিকেতের কবিতার জন্য। এই
      ঠিকানা কবিতা মনটা ভরিয়ে দিল। দারুন অনুভূতি কবিতা বার বার পড়তে ইচ্ছে করে। ! আলোকরেখাকে ও কবি সুনিকেত চৌধরী অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা ।

      ReplyDelete
    5. ঋতু মীরJanuary 29, 2018 at 11:33 PM

      একাকীত্ব বোধ থেকেই মানুষ বিচ্ছিন্ন ! একাকীত্ব বোধেই মানুষ ঠিকানাহীন! মানুষ ইচ্ছা করলে তার একা থাকার অবস্থাটা হয়তো দূর করতে পারে, কিন্তু সবার মাঝে থেকেও ‘একাকীত্ব' নামে বিমূর্ত যে বোধের জন্ম- মানুষ চাইলেই হয়তো তা দূর করতে পারে না। “দাঁড়িয়ে সেখানে আমি দেখি চারিপাশ- কেউ নেই, আছি শুধু আমি! সেইখানে নেই কোন আলো"- সুনিকেত চৌধুরীর ‘ঠিকানা’ কবিতায় বিচ্ছিন্নতা, নির্বাসন, বিসর্জন এবং একাকীত্ব - এই সব বোধের শাশ্বত সুন্দর এক গভীর সংকেত পাওয়া যায় । মানুষ মূলতই একা ! এবং নিজের কাছে নিজেই কখনও ভীষণ অচেনা! জীবনের এই গভীর দর্শনকে নতুন করে ভাবনায় প্রবাহিত করার জন্য কবিকে ধন্যবাদ! শৈল্পিক কোন কষ্ট বোধে কবির কলমে জন্ম হোক আরও কবিতা! শুভকামনা নিরন্তর!

      ReplyDelete
      Replies
      1. দারুন সমীক্ষা ঠিকানা কবিতার।ঋতু মীর এত অনবদ্য ভাবে সুনিকেত চৌধুরীর ঠিকানা কবিতার পর্যলোচনা উপস্থাপন করেছেন তা আসলেও বিরল। আপনার মন্তব্য প্রশংসার দাবিদার। আপনার যে কোন বিশুয়ে লেখা প্রকাশ করতে পারলে আলোকরেখা ধন্য হবে। ভালো থাকবেন

        Delete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ