আলোকের এই ঝর্নাধারায় ধুইয়ে দাও -আপনাকে এই লুকিয়ে-রাখা ধুলার ঢাকা ধুইয়ে দাও-যে জন আমার মাঝে জড়িয়ে আছে ঘুমের জালে..আজ এই সকালে ধীরে ধীরে তার কপালে..এই অরুণ আলোর সোনার-কাঠি ছুঁইয়ে দাও..আমার পরান-বীণায় ঘুমিয়ে আছে অমৃতগান-তার নাইকো বাণী নাইকো ছন্দ নাইকো তান..তারে আনন্দের এই জাগরণী ছুঁইয়ে দাও প্রিয়, লেখার অভ্যাসটা ছেড়েছি বহুকা্সি--------------------------------- সানজিদা রুমি ~ alokrekha আলোক রেখা
1) অতি দ্রুত বুঝতে চেষ্টা করো না, কারণ তাতে অনেক ভুল থেকে যায় -এডওয়ার্ড হল । 2) অবসর জীবন এবং অলসতাময় জীবন দুটো পৃথক জিনিস – বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন । 3) অভাব অভিযোগ এমন একটি সমস্যা যা অন্যের কাছে না বলাই ভালো – পিথাগোরাস । 4) আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও , আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দেব- নেপোলিয়ন বোনাপার্ট । 5) আমরা জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহন করি না বলে আমাদের শিক্ষা পরিপূর্ণ হয় না – শিলার । 6) উপার্জনের চেয়ে বিতরণের মাঝেই বেশী সুখ নিহিত – ষ্টিনা। 7) একজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি আরেকজন ঘুমন্ত ব্যাক্তি কে জাগ্রত করতে পারে না- শেখ সাদী । 8) একজন দরিদ্র লোক যত বেশী নিশ্চিত , একজন রাজা তত বেশী উদ্বিগ্ন – জন মেরিটন। 9) একজন মহান ব্যাক্তির মতত্ব বোঝা যায় ছোট ব্যাক্তিদের সাথে তার ব্যবহার দেখে – কার্লাইন । 10) একজন মহিলা সুন্দর হওয়ার চেয়ে চরিত্রবান হওয়া বেশী প্রয়োজন – লং ফেলো। 11) কাজকে ভালবাসলে কাজের মধ্যে আনন্দ পাওয়া যায় – আলফ্রেড মার্শা
  • Pages

    লেখনীর সূত্রপাত শুরু এখান থেকে

    প্রিয়, লেখার অভ্যাসটা ছেড়েছি বহুকা্সি--------------------------------- সানজিদা রুমি




    প্রিয়,
    লেখার অভ্যাসটা ছেড়েছি বহুকাল। ডায়েরিগুলোর স্থান এখন আলমারির এক কোনায়। কোনোটা ধুলোয় মাখা, আবার কোনোটা বা নগ্নাবস্থা। হঠাৎ  আজ স্মৃতিচারণ করতে ইচ্ছে হলো। বসলাম কাগজ, কলম নিয়ে। পাশে রাখলাম লাল মলাটের পুরনো সেই ডায়েরি। জানালা দিয়ে বাইরে তাকিয়ে দেখি সন্ধ্যা আসন্ন। আকাশটা লাল হয়ে আছে, যেন কেউ এসে আবির ঢেলে দিয়েছে। মনে এলোমেলো কত কি আসছে  কিন্তু কি লিখবো বুঝে উঠতে পারছি না। হঠাৎ ইলেক্ট্রিসিটি গেলো চলে। সমস্ত আকাশ গর্জে উঠলো একসাথে। ধ্বনিত হল এক ভয়ংকর শব্দ। বাতি নিয়ে ঘরে ফিরে দেখি পুরনো ডায়েরির পাতাগুলো সব এলোমেলো হয়ে গেছে আর তার ওপর খেলা করছে একগুচ্ছ জলরাশি। যেন অতীত কোনো প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য ঝাঁপিয়ে পড়েছে পাতার ওপর। আর এতেই মনে হল এসব লেখা-টেখা আর আমার জন্য নয়, আর সেটা বোঝাতেই জলরাশিগণের আগমন এই অসময়ে। তাই আর দুঃসাহস দেখাতে গেলাম না। বন্ধ করলাম লেখা। চোখ পড়ে গেলো ডায়েরির হলুদ হওয়া একটা পাতার দিকে। যেন এক মুহূর্তে পিছিয়ে গেলাম অনেকটা। মনে পড়ে গেলো তোমার কথা। হ্যাঁ, একদম ঠিক ধরেছ তোমার কথাই বলছি আমি। তোমার সাথে আমার পরিচয় বহুকালের,যখন ভালো করে ভালোবাসার মানে বুঝতে শিখিনি ।ভালোবাসার  টালমাটালি পায়ে সদ্য হাঁটতে শেখার আনন্দে সমগ্র বিশ্বকে পেতে চাইতাম  হাতের মুঠোয়। যেন ছুটে চলতাম পৃথিবীর এক কিনারা থেকে অন্য কিনারায়। জিজ্ঞাসু চোখে সবসময় লেগে থাকতো প্রেমের  ভাষা। দৃঢ় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ মন আমার ।
    জীবনে নিজের পায়ে দাঁড়াতে হবে, বহুদুর যেতে হবে এটা ছোট্ট থেকেই ছিল প্রতিজ্ঞা। ঘটনাবহুল এ সমাজকে দেখে জীবনকে নিয়ে একটা ধারণা তৈরি করেছিলাম আমি। সেখানে জীবনের শুধু তিনটি স্তর। যেমন ধরুন বস্তুবাদী স্তর ধন-সম্পদ-আকাঙ্খা নিয়ে। গোপনীয় স্তর  ও আধ্যাত্মিক স্তর। এগুলো কোনো লেখা বা পুঁথিগত বিদ্যা নয়, জীবন সম্পর্কে আমার ব্যাক্তিগত ধারণা। মানুষ না চাইলেও এই দিকগুলিকে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে প্রভাবিত করে মানুষকে। কখনো এর ফল হয় ভালো আবার কখনো বা খারাপ। কিন্তু খুব কম মানুষকে দেখলাম জীবনে যারা এইসমস্ত স্তরের ভালো দিকগুলোকে জীবনের প্রেরণা হিসাবে কাজে লাগিয়ে বহুদুর এগিয়েছে। এই কম মানুষের মধ্যে তুমি  অন্যতম। যে দৃঢ় প্রতিজ্ঞায় সংকল্পবদ্ধ হয়েছিলো সে কারুর সাধ্য ছিল না তাকে আটকানোর। সব প্রতিবন্ধকতাকে হার মানিয়ে জয়ী হয় সে। পথটা সহজ ছিলোনা মোটেও, তবুও হার মানেনি ।হয়তো ভালবাসাই আজ আমাদের শিখিয়ে দিয়ে গেলো নিজের লক্ষ্য স্থির থাকলে যেকোনো বাধাই আসুক না কেন সব বাধা পেরিয়ে নিজের লক্ষ্য পূরণ হবেই হবে।অনেক কথাই হল আজ আর নয় পরে আবার লিখবো ভাল থেকো!
    তোমার
    মানসী 


    সানজিদা রুমি কর্তৃক গ্রথিত http://www.alokrekha.com

    1 comments:

    1. ইয়াসমিন সুলতানাFebruary 8, 2020 at 8:54 PM

      লেখাটা পড়ে খুব ভালো লাগলো। অনন্য শব্দের বিনুনি। চমৎকার ভাব বিষয় ,লেখককে আন্তরিক শুভেচ্ছা।

      ReplyDelete

    অনেক অনেক ধন্যবাদ